দেবহাটায় নাশকতায় ক্ষতিগ্রস্থ মিজানুরের মানবেতর জীবন যাপন

0
336

নিজস্ব প্রতিনিধি:
সারাদেশ ব্যাপী বিএনপি-জামায়াতের ডাকা হতরতাল-অবরোধে সহিংসতায়-নাশকতা হামলা চালিয়ে হত্যা ও আহত করে দেওয়া হয় বহু আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীকে। এতে করে অনেকে জীবন হারিয়েছেন। আবার অনেকে পঙ্গুত্ব বরণ করে অসহায় দিন কাটাচ্ছেন। সে সময়ে হামলার শিকারের অনেক আজ অসহায় ভাবে দিন কাটালেও কেউই তাদের খবর রাখে না দুঃখ প্রকাশ করে বলেন মিজানুর রহমান। তিনি দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া ইউনিয়নের উত্তর পারুলিয়া গ্রামের মোসলেম আলী গাজীর পুত্র এবং আওয়ামীলীগ কর্মী। সে একজন গরীব মুদি দোকানদার। ২ সন্তানের লেখা-পড়া, ভরন-পোষণ সহ পরিবারের ৭ জনের সংসার চলে একজনের আয়ে। তিনি বলেন, পারুলিয়া নতুন গরুর হাট এলাকায় অবস্থিত দোকনটি গত ২০১৩ সালের ১মার্চ রাত জামাত-শিবিরের নেতাকর্মীরা লুটপাট করে আগুন জালিয়ে দেয়। এঘটনায় পরদিন থানায় সাধারণ ডায়েরি করি যার নাম্বার-৫১। পরবর্তীতে বিভিন্ন স্থানে আর্থিক সহযোগীতার আবেদন করেও কোন সহযোগীতা পায়নি। কিন্তু সে সময়ে তার ৭লাখের বেশি টাকা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়ি। তারপর বিভিন্ন সমিতি থেকে ঋণ করে আবারও দোকান শুরু করি। বর্তমানে আমার পক্ষে সংসার চালানো এবং পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা চালিয়ে যেতে খুব কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে। আমার দোকান
ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পর ততকালীন নির্বাহী অফিসার আ ন ম তরিকুল ইসলাম তার ব্যক্তিগত তহবিল হতে ৪ হাজার টাকা প্রদান করেন। তাছাড়া কোন সরকারি সহযোগীতা পায়নি। আমার পিতা একজন সহ মুক্তিযোদ্ধা। কিন্তু দুঃখের বিষয় আমার পিতার নাম মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় আসেনি। এছাড়া আমার মা অনেক দিন ধরে অসুস্থ হওয়ার স্বর্তেও তাকে চিকিৎসা করাতে পারছি না। এমনকি আমার একটি বিধবা বোনের ভরণ-পোষন আমাকে চালাতে হয়। আমার পরিবার পরিচালনা এবং ঋণের টাকা পরিশোধ করতে হিমশিম খাচ্ছি। এমন অবস্থায় সরকারি ভাবে সহায়তা বা ব্যক্তি সহযোগীতা পেয়ে পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা এবং ঋণ পরিশোধ করতে
পারি সে ব্যাপারে আবেদন জানিয়েছেন তিনি।