দিল্লিকে হারিয়ে শীর্ষে ধোনির চেন্নাই ‘এক্সপ্রেস’

0
389

খেলা ডেস্ক:

আগের ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের বিপক্ষে ৮ উইকেটের বড় হার চেন্নাই সুপার কিংসের। সে হারের ক্ষতটা আর বড় হতে দিল না ধোনির চেন্নাই। আজ দিল্লিকে ১৩ রানে হারিয়ে ঠিকই ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা।

এই জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে সাকিবের সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে পেছনে ফেলে সবার সামনে ছুটছে ধোনির চেন্নাই। আট ম্যাচ শেষে হায়দরাবাদ ও দিল্লির সমান ১২ পয়েন্ট হলেও রানরেটে এগিয়ে আছে চেন্নাই। শীর্ষে থাকা চেন্নাইয়ের (০.৫৫৩) সঙ্গে নেট রানরেটে পিছিয়ে সানরাইজার্স (০.৫১৪)।

আগের ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের বিপক্ষে ১৬৯ করা চেন্নাই আজ প্রথমে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে ২১১ রান তোলে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি দিল্লি। পৃথ্বী শাহ দুটি চার মেরে ঝড়ের আভাস দিলেও পাঁচ বলে ৯ রান করে দ্বিতীয় ওভারেই আসিফের বলে জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান। পৃথ্বী ফিরে গেলে প্রথম তিন ওভারে দিল্লির সংগ্রহ দাঁড়ায় মাত্র ১৭। আর ৫ ওভারে দলীয় ৪৬ রানে ব্যক্তিগত ২৬ রানে ফিরে যান মুনরো। শুরুতেই পিছিয়ে গিয়ে আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি তারা। মারকুটে ব্যাটসম্যান খ্যাত ম্যাক্সওয়েল ৫ বলে করেছেন মাত্র ৬।

তবে আশা দেখাচ্ছিলেন শংকর ও পান্ট। কিন্তু ১৭.৪ ওভারে দলীয় ১৬২ রানের সময় ব্যক্তিগত ৭৯ রান করে পান্ট আউট হলে ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে পড়ে দিল্লি। কিন্তু আবার ১৯তম ওভারে তিনটি ছয় মেরে ধোনির বুকে কিছুটা ভয় ধরিয়ে দেন শংকর। শেষ ওভারে জয়ের জন্য তাঁদের প্রয়োজন ছিল ২৮। তাঁরা সংগ্রহ করেন ১৪।

এর আগে ওয়াটসন ও ধোনির ঝড় ইনিংসে চার উইকেট হারিয়ে ২১১ রান তোলে চেন্নাই। ওয়াটসন ৪০ বলে ৭৮ করে ফিরে গেলেও ২২ বলে ৫১ রান করে নটআউট ছিলেন ধোনি। চেন্নাই অধিনায়ক ছয় মেরেছেন ৫টি।
ডুপ্লেসিসের সঙ্গে ওপেনিং জুটিতে ১০ ওভারেই ১০০ রান তুলে ফেলে ওয়াটসন। ১০.৫ ওভারে ব্যক্তিগত ৩৩ রান করে শংকরের বলে আউট হয়ে ফেরেন ডুপ্লেসিস। পরের ওভারেই রায়নাকে ফেরান ম্যাক্সওয়েল। পরপর দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া চেন্নাই ১৩.৫ ওভারে ১৩০ রানের মধ্যে হারায় ওয়াটসনকে। এরপর শুরু হয় ধোনির তাণ্ডব। ৩১ রানের সময় মুনরোর হাতে জীবন পাওয়া ধোনি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৫১ রানে।

প্রথম ছয় ম্যাচে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের মাত জয় ছিল মাত্র একটি। তাই গৌতম গম্ভীরের জায়গায় অধিনায়কত্বের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয় শ্রেয়াস আয়ারের হাতে। শ্রেয়ার্সের নেতৃত্বে আগের ম্যাচে (সপ্তম ম্যাচে) জয়ও পেয়েছিল দিল্লি। এই জয়ে টেবিলের তলানি থেকে কিছুটা ওপরে ওঠার রসদ পেয়েছিল তারা। কিন্তু আবার হারের বৃত্তেই ফিরে আসতে হলো তাদের। ধোনির চেন্নাই যখন টেবিলের সবার ওপরে, দিল্লি রইল সবার নিচেই।