দাকোপ ইউএনওর হস্তক্ষেপে বন্ধ হল বাল্যবিবাহ

0
700

নিজস্ব প্রতিবেদক,খুলনাটাইমস :

খুলনার দাকোপ উপজেলায় মাদ্রাসা পড়ুয়া এক কিশোরীর (১৬) বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল ওয়াদুদ।

 

বৃহস্পতিবারে (০১ নভেম্বর) ওই কিশোরীর বিয়ের সকল আয়োজন করেছিল তার পিতা। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে উপজেলার পানখালি ইউনিয়নের মৌখালী গ্রামে ওই কিশোরীর বাড়িতে আকষ্কিক বিয়ের আয়োজনের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ নিয়ে হাজির হন ইউএনও মো. আবদুল ওয়াদুদ। পরে কিশোরীর পরিবার ও পাত্রপক্ষের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে বাল্যবিবাহটি বন্ধ করেন তিনি। এ সময় পাত্রপাত্রীর অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেকা নেন এবং ঘটনাস্থল থেকে পাত্রর চাচাকে ও পাত্রীর বাবাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন পুলিশ।

এলাকাবাসি ও উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানা যায়, ওই কিশোরী স্থানীয় একটি মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী। বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. আবদুল ওয়াদুদ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে পাত্রপক্ষের নিকট থেকে ৩০ হাজার এবং পাত্রীপক্ষের নিকট থেকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।

 

দাকোপ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. আবদুল ওয়াদুদ খুলনাটাইমসকে  বলেন, ওই ছাত্রীর পরিবার ভূয়া জন্মসনদ বানিয়ে মেয়েটিকে প্রাপ্তবয়স্ক দেখিয়ে বিয়ের আয়োজন করেছিল। ফোনে বিষয়টি শোনার পর পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে দুই পরিবারকে বুঝিয়ে বিয়েটি বন্ধ করা হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবে না বলে উভয় পরিবারের কাছ থেকে মুচলেকা নেওয়া হয়েছে।