দাকোপে ডাক্তার অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ

0
511

দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধি, খুলনাটাইমস:
খুলনার দাকোপ উপজেলায় বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনী ডা. সন্তোষ কুমার মজুমদারের অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ৭ মার্চ তিলডাঙ্গা নি¤œ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সামছুর রহমানের স্ত্রী রেক্সনা খাতুনকে সন্তান প্রসবের জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
ভুক্তোভ‚িগর পরিবার জানায়, ডাঃ সন্তোষ দীর্ঘদিন ধরে রেক্সনার গর্ভের সন্তান ও তাকে পরিক্ষা-নিরিক্ষা করে আসছিলেন। সে ভাবেই তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রুগীর প্রসব বেদনা উঠলে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেই ডা. সন্তোষ এবং সে একটি কন্যা সন্তান জন্মে। কিন্তু সন্তান হওয়ার পর প্রায় ৩ ঘন্টা ডাক্তার রেক্সনার চিকিৎসা চালান। এত দেরি দেখে রুগীর স্বজনেরা উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে। পরে ডাক্তার অপারেশন থিয়েটার থেকে বেরিয়ে বলেন, রুগীর রক্তের প্রয়োজন এবং যত শীঘ্রই সম্ভব খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে হবে। পরে রুগীকে খুলনা গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয় এবং কিছুক্ষণ পর রুগীর মৃত্যু হয়। তারা আরও বলেন, রুগীর মৃত্যুর কারণ জানতে চাইলে গাজী মেডিকেলের কর্তব্যরত ডাক্তার জানান সিজার করার সময় রুগীর একটি রক্তবাহি নালি কেটে গিয়ে রক্ত ক্ষরণ হয়ে রুগীর মৃত্যু ঘটেছে।
রেক্সনার ভাই আমজাদ হোসেন অভিযোগ করে বলেন, রুগীকে বেডে নিলে তার পেটের বাম পাশ দিয়ে রক্ত প্রবাহের পাইপ লাগানো অবস্থায় দেখা যায়। রুগী যন্ত্রণায় কাতর হলে ডাক্তারকে ডাকলে তিনি সময়মত আসেনি। তিনি আরও বলেন, তারপর ডা. মোজাম্মেল হককে ডাকলে রুগীর উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনায় নেওয়ার পরামর্শ দেন।
এরপর রেক্সনার আত্মীয় স্বজন ও এলাকার বিক্ষুব্ধ জনতা অভিযুক্ত ডাক্তারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানায়। তারা এমন অবহেলার প্রতিবাদে দাকোপবাসির আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল চালনা পৌরসভার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। তারপর ডাকবাংলো মোড়ে মানববন্ধন এবং সবিশেষ হাসপাতাল মোড়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে বক্তব্য করেন,্ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাড.সুভদ্রা সরকার, ইউপি চেয়ারম্যান পঞ্চানন মন্ডল, সিপিবি নেতা কিশোর রায়, শাকিল আহম্মেদ দিলু, শফিকুল ইসলাম আক্কেল, প্রেসক্লাবের সভাপতি শচীন্দ্র নাথ মন্ডল, সাংবাদিক আজগর হোসেন ছাব্বির, রেক্সনার স্বামী সামছুর রহমান, ছোট ভাই বাবুল হোসেনসহ আরো অনেকে।
সমাবেশ শেষ করে ডাক্তারের শাস্তির দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে গণস্বাক্ষর সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।
বিষয়টি জানতে চাইলে ডাঃ সন্তোষ কুমার মজুমদার বলেন, আমার অপারেশন ঠিক ছিল কিন্তু অপারেশনের এক মুহুর্তে রুগীর বøাড প্রেসার বেড়ে যাওয়ায় রক্তক্ষরণ হয়েছে যেটা নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব হয়নি।