তালুকদার খালেককে কেসিসি মেয়র পদে সর্বসম্মতিক্রমে সুপারিশ নগর আ’লীগের

0
1035

এম জে ফরাজী, খুলনাটাইমস:
আসন্ন খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেককে মেয়র পদে মনোনয়নের জন্য সর্বসম্মতিক্রমে সুপারিশ করেছে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ। গতকাল সোমবার রাতে দলীয় কার্যালয়ে জরুরী বর্ধিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানান সভায় অংশ নেওয়া নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মলি­ক আবিদ হোসেন কবির। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, বর্ধিত সভার শুরুতেই আসন্ন কেসিসি নির্বাচনে প্রার্থী হতে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের নাম প্রস্তাব করেন নেতৃবৃন্দ।
এসময় নেতৃবৃন্দ বলেন, সঠিক প্রার্থী মনোনয়ন না দিলে কেসিসি নির্বাচনের সাথে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুলনার ছয়টি আসনেও এর প্রভাব পড়তে পারে। আর তালুকদার আব্দুল খালেক যদি নির্বাচনে অংশ না নেন তাহলে খুলনা সিটি উন্নয়ন বঞ্চিত হবে। খুলনাবাসীর স্বার্থে, খুলনার উন্নয়নের জন্য মেয়র পদে তালুকদার আব্দুল খালেকের নির্বাচন করা উচিত। আর তিনি যদি নির্বাচনে অংশ না নেন তাহলে আওয়ামী লীগের জয় কষ্টকর হবে।
এসময় বাকি মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বলেন, খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক প্রার্থী হলে আমাদের সমর্থন আছে। যদি তিনি প্রার্থী না হন তাহলে আমরা কেন্দ্রের কাছে মনোনয়ন চাইবো। দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার পক্ষে কাজ করবো। এসময় সভায় উপস্থিত সকলে তালুকদার আব্দুল খালেক এর পক্ষে মত দেন। এসময় মেয়র পদে মনোনয়নের জন্য শেখ পরিবারের দুই সদস্য শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল ও শেখ সোহেল’রও নাম উঠে।
সভাপতির বক্তৃতায় আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। তিনি যাকে মনোনয়ন দেবেন খুলনার আওয়ামী লীগ তার পক্ষেই কাজ করবেন। দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় কারো বিরোধীতা করার সুযোগ নেই। দলীয় প্রধান চাইলে তিনি প্রার্থী হবেন বলে জানান।
এসময় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেত্রী সাবেক মন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি, সহ-সভাপতি কাজী এনায়েত হোসেন, মলি­ক আবিদ হোসেন কবির, যুগ্ম সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, নগর আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, শেখ মোশাররফ হোসেন, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. সাইফুল ইসলাম, দৌলতপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সৈয়দ আলী, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস, খালিশপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম বাশার, মহানগর যুবলীগের আহŸায়ক আনিসুর রহমান পপলু প্রমুখ।
প্রসঙ্গত, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক ২০০৮ সালের নির্বাচনে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। তার মেয়াদকালে (২০০৮-২০১৩) খুলনার অভুতপূর্ব উন্নয়ন দৃষ্টি কেড়েছে নগরবাসীর। এরপরও ২০১৩ সালের নির্বাচনে হেফাজত ইস্যু, দলীয় কোন্দল ইত্যাদির কারণে বিএনপি প্রার্থীর কাছে প্রায় ৫৮ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। তখন থেকেই তিনি আর নির্বাচন করবেন না বলে গুঞ্জন উঠছিল। সর্বশেষ গত ৩১ মার্চ কেসিসি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মেয়র পদে নির্বাচন করতে চান না বলে সাংবাদিকদের কাছে সাক্ষাৎকার প্রদান করেন। এরপরই তাকে মেয়র পদে নির্বাচন করতে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ লোকজন ফেসবুকে খোলা চিঠি, স্ট্যাটাস, ফ্রেম তৈরি করে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।