ঢাবি বিশ্বঃ অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী

0
1129

অনলাইন ডেস্কঃ নওয়াব বাহাদুর সযৈ়দ নওয়াব আলী চৌধুরী (জন্ম: ২৯ ডসিম্বের, ১৮৬৩; মৃত্যু: ১৭ এপ্রলি, ১৯২৯) বাংলাদশেরে (তৎকালীন র্পূব বাংলা) টাঙ্গাইলস্থ ধনবাড়ীর নবাব ছলিনে। তনিি ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়রে অন্যতম প্রতষ্ঠিাতা। তনিি অবভিক্ত বাংলার প্রথম মুসলমান মন্ত্রীর দায়ত্বি পালন করনে। সে সময় তনিি শক্ষিামন্ত্রী ছলিনে। তার দৌহত্রি মোহাম্মদ আলী বগুড়া পাকস্তিানরে তৃতীয় প্রধানমন্ত্রী ছলিনে। এছাড়া তার এক পুত্র সযৈ়দ হাসান আলী চৌধুরী র্পুব পাকস্তিান সরকাররে মন্ত্রী ছলিনে। নবাব এস্টটেরে অফসি ভবন, টাঙ্গাইল, ধনবাড়ী।
জন্ম ও শশৈব
টাঙাইলরে ধনবাড়ীর নবাব এস্টটেরে ৭০০ বৎসর পুরোনো মসজদি। প্রায় চারশত বৎসর র্পূবে এই মসজদিরে সংস্কার করা হয়। তারপর থকেে মসজদিটি এই অবস্থায়ই আছে নওয়াব সাহবে ১৮৬৩ সালরে ২৯ ডসিম্বের টাঙ্গাইল জলোর ধনবাড়ীর বখ্যিাত জমদিার পরবিারে জন্মগ্রহণ করনে। তার আড়াইশ বছর আগে নওয়াব বাহাদুর সযৈ়দ নওয়াব আলী চৌধুরীর প্রপতিামহ শাহ সযৈ়দ খোদা বক্স র্বতমান টাঙ্গাইল জলোর ধনবাড়ীতে বসতি স্থাপন করনে। নওয়াব আলী চৌধুরী শশৈবে গৃহ শক্ষিকরে কাছে আরবী, র্ফাস,ি ও বাংলায় বশিষে শক্ষিা লাভ করনে। তার আনুষ্ঠানকি লখোপড়া শুরু হয় রাজশাহীর কলজেযি়টে স্কুলে এবং পরর্বততিে কলকাতার বখ্যিাত সন্টে জোভযির়্াস কলজে থকেে তনিি এফ.এ. পাশ করনে।
সাহত্যি সংস্কৃতি
১৮৯৫ থকেে ১৯০৪ র্পযন্ত নওয়াব সাহবেরে র্কমতৎপরতা ছলি প্রধানত সাহত্যি ও সংস্কৃতি কন্দ্রেকি। ১৮৯৫ সালে মহিরিও সুধাকর পত্রকিা একত্রতি হয়ে সাপ্তাহকি মহিরি-সুধাকর নামে আত্মপ্রকাশ কর।ে নওয়াব আলী চৌধুরী এর মালকি ছলিনে। এজন্য একটি প্রসে ক্রয় করে তনিি কলকাতায় তার নজি বাসভবনে স্থাপন করনে। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, পন্ডতি রযে়াজউদ্দনি আহমদ আল মাশহাদী, কবি মোজাম্মলে হকরে সাহত্যি প্রকাশনায় নওয়াব আলী চৌধুরীর দান ছলি অপরসিীম। ফলে উল্লখেতি লখেকগন তাদরে বভিন্নি প্রকাশনায় নওয়াব আলী চৌধুরীর নামে উৎর্সগ করনে।
রাজনীততিে প্রবশে
টাঙ্গাইলরে ধনবাড়ীর নবাব এস্টটেরে বঠৈকখানা। বৃটশি ভারতরে ভাইসরয় র্লড র্হাডঞ্জি তৎকালীন র্পূব বঙ্গ সফরে এল,ে এই ভবনইে নবাব সাহবেরে সাথে তার বঠৈক হয়। এই ঘরটতিে আসবাব পত্র এখনও ঠকি সভোবইে সাজানো আছ,ে যভোবে সদেনিরে বঠৈকরে সময় সাজানো ছলি।
১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন থকেে তার রাজনীততিে সক্রযি় হন। ১৯০৫ সালরে ১৬ অক্টোবর হন্দিু জাতীয়তাবাদরে প্রর্বতকদরে প্রবল বাঁধার মুখে বঙ্গভঙ্গ র্কাযকর হয়ে র্পুব বাংলা ও আসাম নামক একটি মুসলমি প্রধান প্রদশে জন্ম লাভ করলে নওয়াব আলী চৌধুরী একটা র্সবভারতীয় মুসলমি রাজনতৈকি প্রতষ্ঠিান গঠন করার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করনে। তনিি মুসলমানদরে অনগ্রসরতার জন্য অশক্ষিাকে দায়ী করনে। ১৯০৫ সালরে যদেনি বঙ্গভঙ্গ র্কাযকর হয় সদেনিই ঢাকার র্নথব্রুক হলে তার ও ঢাকার নবাব স্যার সলমিুল্লাহরে উদ্দোগে প্রাদশেকি রাজনতৈকি সংগঠন গঠতি হয়। তনিি বংগ ভঙ্গ সর্ম্পকে বলনে , “প্রদশে রক্ষার জন্য যুদ্ধ করযি়াছি এবং যদওি সে চষ্ঠো সফল হয় নাই তথাপওি র্পুব বঙ্গে যাহারা আমাদরে প্রতপিক্ষ ছলিনে তাহারা র্পযন্ত স্বীকার করবিনে য,ে আমরা যাহার জন্য চষ্ঠো করযি়াছলিাম তাহাই ঠকি এবং বঙ্গভঙ্গ রদ হওয়াতে ঐ প্রদশেরে হন্দিু মুসলমান উভয় সম্প্রদায়রেই ক্ষতি হইয়াছ।ে
ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয় প্রতষ্ঠিা
১৯১১ সালে ২৯ আগস্ট ঢাকার র্কাজন হলে ল্যান্সলট হযে়াররে বদিায় এবং র্চালস বইেলরি যোগদান উপলক্ষে সংর্বধনা অনুষ্ঠানে পৃথক দুটি মানপত্রে নবাব সলমিুল্লাহ ও নওয়াব আলী চৌধুরী ঢাকায় বশ্বিবদ্যিালয় প্রতষ্ঠিার দাবী জানান। ১৯১২ সালরে ৩১ জানুয়ারি র্লড র্হাডঞ্জিরে ঢাকায় অবস্থান কালে নওয়াব সলমিুল্লাহ ও নওয়াব আলী সহ ১৯ জন সদস্য বশিষ্টি একটি প্রতনিধিি দল তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বঙ্গভঙ্গ রদরে ফলে মুসলমানদরে যে সমূহ ক্ষতি হচ্ছে সে কথা তুলে ধরনে। এ লক্ষ্যে ১৩ সদস্য বশিষ্টি নাথান কমটিি গঠতি হলে নওয়াব আলী চৌধুরী এর অন্যতম সদস্য হন। এর অধীনে ছয়টি সাব কমটিি গঠতি হলে তনিি ৬ টি বভিাগরে সদস্য নযিুক্ত হন। ১৯১৪ সালে প্রথম বশ্বিযুদ্ধ চলাকালে র্আথকি সংকটরে কারনে ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয় প্রতষ্ঠিার কাজ চাপা পড়ে যায়। সে সময় নওয়াব আলী চৌধুরী ইম্পরেযি়াল কাউন্সলিরে সদস্য ছলিনে। তনিি বষিয়টি আবার ১৯১৭ সালরে ৭ র্মাচ ইম্পরেযি়াল কাউন্সলিরে সভায় আবার উপস্থাপন করনে। ১৯২০ সালরে র্মাচ ১৮ ভারতীয় আইনসভায় ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয় বলি অ্যাক্টে পরনিত হয় এবং ২৩ র্মাচ তা গর্ভনর জনোরলেরে অনুমোদন লাভ কর।ে র্লড র্হাডঞ্জি র্কতৃক ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয় প্রতষ্ঠিার নয় বছর পর ১৯২১ সালরে জুলাই মাসে ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়ে যথারীতি ক্লাস শুরু হয়। ১৯২২ সালে তনিি ছাত্র ছাত্রীদরে বৃত্তি বাবদ ১৬ হাজার টাকার একটি তহবলি ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়ে প্রদান করনে। এছাড়াও বশ্বিবদ্যিালয় প্রতষ্ঠিাকালে র্অথাভাব দখো গলেে নজি জমদিারীর একাংশ বন্ধক রখেে এককালীন ৩৫,০০০ টাকা প্রদান করনে।
নওয়াব আলী চৌধুরী সনিটে ভবন, ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয় ২০০৩ সালরে ৯ জুন ঢাকা বশ্বিবদ্যিালয়রে উপার্চায এস. এম. এ. ফায়জেরে সভাপতত্বিে সন্ডিকিটেরে এক সভায় র্সবসম্মতক্রিমে সনিটে ভবনরে নাম “সযৈ়দ নওয়াব আলী চৌধুরীর সনিটে ভবন” করা হয়।
শক্ষিাবস্তিার
নওয়াব আলী চৌধুরী অবভিক্ত বাংলার প্রথম মুসলমান মন্ত্রী । শক্ষিাবস্তিারে তার আন্তরকিতার জন্য সে সময় তাকে শক্ষিা মন্ত্রীর দায়ত্বি দওেয়া হয়ছেলি। ১৯২৯ সালরে এপ্রলি ১৭ ইন্তকোলরে র্পুব র্পযন্ত তনিি মন্ত্রীর দায়ত্বি পালন করনে। এদশেে নওয়াব আলী চৌধুরী ৩৮টি শক্ষিা প্রতষ্ঠিান স্থাপনে জমি ও র্আথকি সহায়তা প্রদান করনে। ১৯১০ সালে তনিি নজিস্ব এলাকা ধনবাড়ীতে নওয়াব ইনস্টটিউিট নামরে একটি হাই স্কুল প্রতষ্ঠিা করনে। এছাড়া সোনাতলা, কোদালযি়া, গফরগাঁও, পংিনা, জঙ্গলবাড়,ি হয়বতনগরসহ বভিন্নি স্থানে শক্ষিা প্রতষ্ঠিান স্থাপনে সহায়তা করনে।
মাতৃভাষার প্রতি অবদান

নওয়াব আলী চৌধুরী র্কতৃক ১৯১০ সালে ধনবাড়ীতে প্রতষ্ঠিতি নওয়াব ইনস্টটিউিশন এর গটে নওয়াব আলী চৌধুরী ১৯১১ সালরে রংপুর অধবিশেনে মাতৃভাষা বাংলার পক্ষে প্রথম সোচ্চার হয়ে বলছেলিনে, “বাংলা আমাদরে মাতৃভাষা, মাতৃস্তনরে ন্যায়, জন্মভূমরি শান্তি নকিতেনরে ন্যায় বাংলা ভাষা। বাংলাভাষা আমাদরে নকিট প্রযি়, কন্তিু হতভাগ্য আমরা, প্রযি় মাতৃভাষার উন্নতকিল্পে আমরা উদাসীন। অধঃপতন আমাদরে হবে না – তো কার হব?ে তৎকালীন প্রতকিূল পরবিশেে একজন জমদিার হয়ে বাংলা ভাষা রাষ্ট্রভাষা প্রশ্নে তনিি গুরুত্বর্পূণ ভূমকিার স্বাক্ষর রাখনে। ১৯২১ সালে বাংলাভাষাকে প্রদশেরে সরকারি ভাষা করার জন্য লখিতি প্রস্তাব পশে করনে।
বভিন্নি পদবি লাভ
১৮৯৬ সালে খান বাহাদুর, ১৯১১ সালে নওয়াব, ১৯১৮ সালে কমান্ডার অব দ্যা ইন্ডযি়ান এম্পায়ার (সআিইই) এবং ১৯২৪ সালে নওয়াব বাহাদুর পদবি লাভ করনে।
মৃত্যু
নওয়াব আলী চৌধুরীর কবর সযৈ়দ নওয়াব আলী চৌধুরী ১৭ এপ্রলি ১৯২৯ (বাংলা ১৩৩৬, ১ বশৈাখ) র্দাজলিংিয়ে (র্বতমানে ভারতরে পশ্চমিবঙ্গ)ে ইডনে ক্যাসলেে ইন্তকোল করনে।