ডুমুরিয়ায় পাঁচটি বাঁধ কেটে কাকমারি বিল অবমুক্ত করলেন স্থানীয় জনতা

0
487

এস রফিক, প্রতিনিধি:
ডুমুরিয়ায় শোভনা ইউনিয়নের কাকমারি দোয়ানী খাল দীর্ঘ ্অর্ধ যুগপর প্রভাবশালী ঘের মালিকের হাত থেকে দখল মুক্ত করেছেন এলাকাবাসি। শনিবার (২ জুন) সকালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত কুমার বৈদ্য‘র নেতৃত্বে সহ¯্রাধীক নারী-পূরুষ এক হয়ে বাঁধ কাটায় অংশ গ্রহন করেন। এ সময় পাঁচটি সংযোগ খালের বাঁধ কেটে দখল মুক্ত করা হয়। এলাকাবাসি জানায়, উপজেলার শোভনা ইউনিয়নের কাকমারি বিলের মধ্যে দিয়ে বয়ে গেছে প্রায় সাড়ে পাঁচ কিলো মিটার দৈর্ঘ্য দোয়াণীর খাল। খালটি দিয়ে কাকমারি, তকতামারি, কুমারঘাটা, নন্দীরমাঠমসহ ৪টি বিলের পানি নিস্কাশন ,আমন ও বোরো চাষে সহায়ক ভ’মিকা রেখে আসছে খালটি। এ ছাড়া খালটি উন্মুক্ত থাকায় এলাকার হাজার হাজার মৎস্য জীবীরা মৎস্য আহরণ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। কিন্ত বিগত ছয় বছর ধরে ডুমুরিয়ার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তি খালটির দুই তৃতীয়াংশে ক্রস বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করে আসছে।এতে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি,বোরো চাষে কৃষকদের পানি নিতে বাঁধা, ফসল উৎপাদন ও বহনে ব্যাপক ভোগান্তীসহ নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হতে থাকে। এ নিয়ে দিনে দিনে এলাকাবাসি ক্ষুদ্ধ হতে খাকে। এ দিকে গত ১৬-১৭ অর্থবছরে খালটি খননের পর ওই প্রভাবশালীরা পূরা খালটি দখলে আনার চেষ্ঠা চালায়। ঘটনা প্রসংগে ভ’ক্তভোগী কৃষক মেহাম্মদ আলী গাজী, রুহিদাস মন্ডল, সরোজ কান্তি সরদারসহ অনেকে জানান, খালটি বেদখলে থাকায় আমাদের সীমাহিন ক্ষতির শিকার হতে হয়। এমনকি পানির অভাবে আমরা বোরো চাষ থেকে বঞ্চিত আর মাছের কথাতো বলাই বাহুল্য। এমতবস্থায় এলাকাবাসি উপায়ন্ত না পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যানের স্বরনাপন্ন হয়। এ প্রসংগে ইউপি চেয়ারম্যান সুরঞ্জিত কুমার বৈদ্য জানান, যখন প্রভাবশালীরা আমার ইউনিনের শত-সহ¯্র পরিবারের জীবন জীবিকা নিয়ে খেলবে আর পেটে লাথি মারবে তখন আমিতো আর ঘরে বসে থাকতে পারি না, তাই জনগণকে সাথে নিয়ে তাদের অধিকার তাদের হাতে ফিরিয়ে দিতে ঝুড়ি-কোদাল যার যা ছিল তা নিয়ে প্রভাবশালীদের দেয়া পাঁচটি বাধ কেটে কাকমারি বিল কে স্বাধীন করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য শেখ আঃ কাদের,গৌরঙ্গ মন্ডল,দেব্রত সরদার, আশোক মন্ডল, কার্তিক জোয়াদ্দার, অঞ্জনা দাস, সিতারানী বিশ্বাসসহ সকল ইউপি সদস্যরা।