ডুমুরিয়ায় কালবৈশাখীর তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতি

0
378

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি: ডুমুরিয়ায় গত শুক্রবার বিকেলে কালবৈশাখীর তান্ডবে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বাড়ী-ঘর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,বিদ্যুৎ,গাছ-পালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।এতে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এদিকে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাড়াতে মাঠে নেমেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান,উপজেলা
প্রশাসন ও স্ব স্ব ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা বলে জানা গেছে। জানা যায় শুক্রবার বিকেল ৫.১০ টায় আকস্মিক ভাবে কালবৈশাখীর তান্ডব শুরু হয়। প্রায় ২৫ মিনিটের ঝড়ে শতাধিক বাড়ী-ঘর,১০/১৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কয়েক‘শ গাছ-পালা ও প্রায় ৩৫ হেক্টর জমির ফসলের ক্ষতি হয়। এ বিষয়ে উপজেলা
প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ আশরাফ হোসেন বলেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অসংখ্য কাঁচা-পাকা টিন সেডের বাড়ী-ঘর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভেঙ্গে লন্ডভÐ হয়ে গেছে। যার সঠিক পরিসংখান এখনও পাওয়া যায়নি। উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম জানান ঝড়ে পেঁপে,পটল,কলাসহ প্রায় ১৫ হেক্টর সবজী ও ২০ হেক্টর আমের ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা ফরেষ্টর মোঃ ফোরকানুল আলম জানান শিরিশ, রেন্ট্রী, কড়ইসহ বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক‘শ বৃক্ষ ঝড়ে উপড়ে ও ভেঙ্গে ক্ষতি হয়েছে।এ প্রসংগে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম আবুল বাসার আজাদ জানান ঝড়ে ৭০টি বৈদ্যুতিক খুটি ভেঙ্গে গেছে,১৭৫টি স্পটে তার বিচ্ছিন্ন,১০টি ট্রন্সফরমার ক্ষতি হয়েছে। সবমিলে ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে। যে কারনে বর্তমান ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহনাজ বেগম জানান ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন ও চেয়ারম্যানদের ক্ষতি গ্রস্থদের তালিকা তৈরী ও দাখিল করতে বলা হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনসুর জানান রানাই মহিলা মাদ্রাসা,টিপনা আংগারদহা দাখিল মাদ্রাসাসহ সাহস,ভান্ডারপাড়া,রঘুনাথপুর,খর্নিয়া ও রুদাঘোরা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন ও ক্ষতি গ্রস্থদের ক্ষতিপূরনে আশ্বাস্ত করা হয়েছে।