ডুমুরিয়ায় আত্মহত্যার প্রবণতা বৃদ্ধি : গত এক বছরে ৭৯ জন নারী-পুরুষের মৃত্যু

0
577

এস রফিক, ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি, খুলনাটাইমস:
ডুমুরিয়ায় আত্মহত্যার প্রবণতা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। গত এক বছরে উপজেলায় ৭৯ জন আত্মহত্যা করে মারা গেছে যা ২০১৬ সালের তুলনায় ২১ জন বেশী। এরমধ্যে ৪২ জন নারী। পারিবারিক কলহ, যৌতুক ও প্রেম ঘটিত কারনে এসব আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে বলে জানা গেছে।
ডুমুরিয়া থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারী উপজেলার ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের বকুলতলা গ্রামের ধীরেন বিশ্বাসের ছেলে চেচান বিশ্বাস (৩২) পারিবারিক কলহে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা কওে, ৫ জানুয়ারী উলা গ্রামের আলমগীর মির্জার স্ত্রী পিয়া বেগম (২৬) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৮ জানুয়ারী ধামালিয়া গ্রামের কিতাব্দী সরদারের স্ত্রী আছিয়া বেগম (৬৫) বিষপান করে, ২৬ জানুয়ারী ঘোনা গ্রামের সমরেশ গাইনের স্ত্রী সুপ্রিয়া গাইন (২২) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৯ জানুয়ারী রুদাঘরা গ্রামের নওশের সরদারের ছেলে সোরাব সরদার (৭০) বিষপান করে, ৩০ জানুয়ারী খর্ণিয়া গ্রামের নুর আলী শেখের ছেলে আবু তালেব (৩৬) বিষপান করে, ৩ ফেব্রæয়ারী ডুমুরিয়া সদরের সুকান্ত বিশ্বাসের স্ত্রী সুমতি বিশ্বাস (৩৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৪ ফেব্রæয়ারী শোভনা গ্রামের আঃ সবুর শেখের ছেলে মাসুম বিল্লাহ (২৭) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৩ ফেব্রæয়ারী পাতিবুনিয়া গ্রামের নিতাই রায়ের মেয়ে শ্যামলী রায় (৩৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৪ ফেব্রæয়ারী মাগুরাঘোনার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আঃ করিম শেখ (৩৬) বিষপান করে, ২৫ ফেব্রæয়ারী চুকনগরের নুরুজ্জামানের ছেলে মামুন সরদার (২৭) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৩ মার্চ কৈপুকুরিয়ার অম্বিকা সানার মেয়ে পাগলী সানা (৬৮) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৪ মার্চ নিচুখালীর গোপাল বৈদ্যের স্ত্রী শেফালী বৈদ্য (৩০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৭ মার্চ গুটুদিয়ার শিশির মন্ডলের মেয়ে কল্যানী মন্ডল (৪০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৮ মার্চ খলশীবুনিয়ার মদন মন্ডলের স্ত্রী তুলশী মন্ডল (৭০) গলায় ফাঁস দিয়ে, একই দিনে আমুড়বুনের কালিপদ মন্ডলের মেয়ে পাগলী দাসী (৮০) বিদ্যুৎস্পৃষ্টে, ৯ মার্চ কাঞ্চনপুরের মুজিবুর বিশ্বাসের ছেলে সাদ্দাম বিশ্বাস (২৩) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১২ মার্চ বরুনার আমিন উদ্দিন সরদারের স্ত্রী শরীফা বেগম (৫২) বিষপান করে, ১৫ মার্চ দেড়–লীর মহাদেব সরকারের স্ত্রী ময়না সরকার (৪০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৬ মার্চ বারুইকাটীর বিদ্যেধর মজুমদারের ছেলে কৃষ্ণপদ মজুমদার (৮৭) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৭ মার্চ চুকনগরে অজ্ঞাত (৬০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২০ মার্চ বামুন্দিয়ার ভবানী মল্লিকের স্ত্রী পূজা মল্লিক (১৯) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৬ মার্চ উখড়ার রাসেল মোড়লের স্ত্রী সোহানা খাতুন (১৩) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৮ এপ্রিল শিবপুরের অধীর মন্ডলের স্ত্রী নিলিমা মন্ডল (৪৫) বিষপান করে, ৯ এপ্রিল রাজিবপুরের অহিদ শেখের স্ত্রী রিমা বেগম (২৮) বিষপান করে, ১২ এপ্রিল কুলবাড়ীয়ার দেবাংশু কুন্ডুর মেয়ে তমা রানী কুন্ডু (১৬) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৮ এপ্রিল হাজিবুনিয়ার হরিহর বৈরাগীর ছেলে সুরঞ্জন বৈরাগী (৪৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৯ এপ্রিল রতনখালীর নিতিশ রায়ের স্ত্রী কবিতা রায় (৪০) বিষপান করে, ২১ এপ্রিল ডুমুরিয়া আইতলার বাবলু শেখের স্ত্রী হাফিজা খাতুন (২৩) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১০ মে কুড়েঘাটার পরিমল সরদারের স্ত্রী আনারতি দাসী (৬০) গলায় শাড়ী ফেঁচিয়ে, ১৫ মে রামকৃষ্ণপুরের গৌর বিশ্বাসের ছেলে তারক বিশ্বাস (৩৩) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৬ মে উখড়ার ছালাম সরদারের ছেলে হিমু সরদার (৩২) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৯ মে পঞ্চুর প্রসাদ মন্ডলের মেয়ে মুন্নি মন্ডল (১৩) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৩ মার্চ বরুনার করিম শেখের ছেলে গনি শেখ (৬০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৩ জুন পাটকেলপোতার কালিপদ বিশ্বাসের স্ত্রী চম্পা বিশ্বাস (৪৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৮ জুন আরাজী সাজিয়াড়ার আকরাম হোসেনের স্ত্রী পারুল বেগম (৩৫) বিষপান করে, ১০ জুন চুকনগরের তরিকুল ইসলামের স্ত্রী হামিদা বানু (৪০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১২ জুন রাজাপুরের আছাদ গাজীর স্ত্রী নাজমা বেগম (২৯) গলায় দড়ি দিয়ে, ১৯ জুন উখড়ার আলমগীর হোসেনের স্ত্রী আছিয়া বেগম (২৩) গলায় দড়ি দিয়ে, ২১ জুন মিকশিমিলের দিপক সাহার স্ত্রী মেনুকা সাহা (৬০) গলায় দড়ি দিয়ে, ২৬ জুন আরাজী ডুমুরিয়ার সালাম শেখের ছেলে মোজাহার শেখ (১৩) গলায় দড়ি দিয়ে, ২ জুলাই দিঘলিয়ার অনন্ত ঢালীর মেয়ে প্রবোদা ঢালী (১৭) গলায় দড়ি দিয়ে, ৮ জুলাই কাঠালিয়ার শিবশংকর মন্ডলের ছেলে বিয়ান মন্ডল (১৭) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১৪ জুলাই কাজীরহুলার লক্ষন শীলের ছেলে মনিমোহন শীল (৪০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৩ জুলাই টোলনার বিনয় গোলদারের স্ত্রী চায়না গোলদার (৪২) বিষপান করে, ১ আগষ্ট আটলিয়ার মোস্তফা মোড়লের ছেলে আশরাফ মোড়ল (৫০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২ আগষ্ট বান্দার চৈতন্য বৈরাগীর স্ত্রী গোপালী বৈরাগী (৭৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৪ আগষ্ট শরাফপুরের তোরাব আলী শেখের ছেলে সৈকত ওরফে বাদশা শেখ (১২) গলায় দড়ি দিয়ে, ৫ আগষ্ট চেচুড়ীর আসাদুজ্জামানের স্ত্রী জয়নাব খাতুন (২৭) বিষপান করে, ১০ আগষ্ট দক্ষিন ডুমুরিয়ার শহিদুল শেখের মেয়ে রিক্তা খাতুন (১৮) বিষপান করে,একই দিনে সাজিয়াড়ার রঞ্জন বৈরাগীর মেয়ে দোলা বৈরাগী (১০)গলায় দড়ি দিয়ে,২০ আগষ্ট বরাতিয়ার গোপাল দাসের স্ত্রী পারুল দাস (৮০) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৪ আগষ্ট আরাজী ডুমুরিয়ার আইয়ুব আলীর ছেলে কেএম নাইচ (২২) গলায় দড়ি দিয়ে, ২৫ আগষ্ট ধামালিয়ার যোগেন্দ্রনাথ শীলের ছেলে অমর শীল (৭০) বিষপান করে, ২৮ আগষ্ট কালিকাপুরের সন্তোষ কুন্ডুর স্ত্রী অশোকা কুন্ডু (৫৫) বিষপান করে, ৪ সেপ্টেম্বর খোরেরাবাদের নিরঞ্জন সানার মেয়ে বৃষ্টি সানা (১৭) বিষপান করে, ৮ সেপ্টেম্বর মাগুরাঘোনার খালেক শেখের ছেলে ইমান শেখ (২৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ১১ সেপ্টেম্বর ভান্ডারপাড়ার রুস্তম খানের ছেলে আবু নাঈম খান (১৮) বিষপান করে, ১২ সেপ্টেম্বর চেচুড়ীর তপন পালের স্ত্রী বিলাসী পাল (৫৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৩ সেপ্টেম্বর মিকশিমিলের আঃ হালিম গাজীর ছেলে নওয়াব আলী গাজী (৮৮) গলায় ফাঁস দিয়ে, নরনিয়ার আজহারুল গাজীর স্ত্রী রিমা খাতুন (২৩) গলায় দড়ি দিয়ে, ৫ অক্টোবর মাগুরাঘোনার রাজু সরদারের স্ত্রী রেশমা বেগম (১৯) বিষপান করে, ৯ অক্টোবর রুদাঘরার সিদ্দিক মোড়লের মেয়ে নাহার খাতুন (১২) বিষপান করে, ২৫ অক্টোবর চুকনগরের ময়েজ উদ্দিন শেখের ছেলে মুজিবুর শেখ (৮০) বিষপান করে, ২৬ অক্টোবর রুপরামপুরের বিভাষ বিশ্বাসের স্ত্রী বনানী বিশ্বাস (২৫) গলায় দড়ি দিয়ে, ৩ নভেম্বর খড়িবুনিয়ার শ্যামল রায়ের মেয়ে পিয়া রায় (১৪) গলায় দড়ি দিয়ে, ৮ নভেম্বর মুড়াবুিনয়ার বাসুদেব সরদারের মেয়ে হিরা সরদার (১৫) বিষপান করে, ৯ নভেম্বর মাদারতলার নিরঞ্জন ঢালীর স্ত্রী লক্ষী ঢালী (৬৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, শরাফপুরের কারিমুল সরদারের স্ত্রী লিমা খাতুন (২৩) গলায় দড়ি দিয়ে, ১৪ নভেম্বর কাকমারীর শালু শিকদারের ছেলে চন্ডিদাস শিকদার (৪৫) বিষপান করে, ২০ নভেম্বর মইখালীর রেজাউল ফকিরের ছেলে বোরহান ফকির (২৩) গলায় দড়ি দিয়ে, ২৭ নভেম্বর কদমতলার ক্ষুদিরামের স্ত্রী পাগলী দাসী (৬৫) গলায় ফাঁস দিয়ে, ২৯ নভেম্বর কোমরাইলের জাহাঙ্গীর হোসেনের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন (১১) গলায় ফাঁস দিয়ে, ৬ ডিসেম্বর আরশনগরের তোফাজ উদ্দিনের ছেলে আবুল কাশেম (৭০) গলায় ফাঁস দিয়ে এবং সর্বশেষ ৩০ ডিসেম্বর রুদাঘরার দিদারুল বিশ্বাসের ছেলে ফয়সাল বিশ্বাস (২০) প্রেম প্রত্যখান করায় বিষপানে আত্মহত্যা করে।