ঠাকুরগাঁওয়ে বিএসএফের নির্যাতনে বাংলাদেশি রাখালের মৃত্যুর অভিযোগ

0
314

খুলনাটাইমস: ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার কাঠালডাঙ্গী সীমান্তে বিএসএফের নির্যাতনে এক বাংলাদেশি রাখালের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সীমান্ত থেকে ওই যুবককে উদ্ধারের পর তার মৃত্যু হয় বলে হরিপুর উপজেলার গেদুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল হামিদ জানান। তবে বিজিবি বলছে, নির্যাতনের বিষয়টি বিএসএফ অস্বীকার করেছে। নিহত মো. কামাল (৩২) গেদুড়া ইউনিয়নের গেরুয়াডাঙ্গী গ্রামের হাকিম উদ্দীনের ছেলে। এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবারের বরাতে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হামিদ বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে কাঠালডাঙ্গী সীমান্তের ৩৭০ নম্বর সীমানা পিলার এলাকার শূন্যরেখায় গরু আনতে যায় একদল বাংলাদেশি রাখাল দল। এ সময় ভারতের বিএসএফের নারগাঁও ক্যাম্পের সদস্যরা তাদের ধাওয়া দেয়। বাকিরা পালাতে পারলেও কামাল বিএসএফের হাতে ধরা পরেন। কিছুক্ষণ পর বিএসএফের সদস্যরা কামালকে মারধর করে সীমান্তে ফেলে যায়। পরে কামালের সঙ্গীরা তাকে সেখান থেকে তুলে আনে। পথে তার মৃত্যু হলে তারা লাশ কামালের বাড়িতে রেখে যায় বলে জানান হামিদ। ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, আমি কামালের লাশ দেখেছি। তার মাথা, পিঠ, হাত, পাসহ সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। প্রচ- মারধরের কারণে কামালের মৃত্যু হয়েছে। হরিপুর থানার ওসি মো.আমিরুজ্জামান বলেন, কামাল বিএসএফের হাতে মারধরের শিকার হয়েছেন বলে তারা শুনছেন। সুরতহালে লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্ট্যান্ট কর্নেল এসএম সামিউন নবী বলেন, সীমান্তে কামাল নামে এক ব্যক্তির লাশ পাওয়া গেছে। তবে সে কিভাবে সে মারা গেছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ওই ব্যক্তিকে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করেছে বিএসএফ। এ ঘটনায় বিএসএফকে পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানানো হয়েছে। বৈঠকের পর তার মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করা যাবে বলে জানান বিজিবির এ কর্মকর্তা জানান। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।