জয়েন্ট ফিড কোম্পানির বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির অভিযোগ : মামলার প্রস্তুতি

0
662

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধি:
জয়েন্ট ফিড লিমিটেডের বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে খানজাহান আলী থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করা হয়েছে ( নং ৩৩০ তাং ৮/৪/১৮)। সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।
অভিযোগে জানা গেছে, শিরোমণি বাজারের ছায়রা পোল্ট্রি এন্ড ফিস ফিডের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যশোর বাঘারপাড়ার ছাতিয়ান তলার জয়েন্ট ফিড লিঃ এর সাথে ব্যবসায়ীক লেনদেনের সুবাদে গত ৫ এপ্রিল জয়েন্ট ফিডের এমডি মোঃ নুর ইসলামকে ট্রাষ্ট্র ব্যাংক লিঃ হিসাবে নং০৬৬০২১০০০২২৮৩ এর অনুকুলে চেক নং ৬৫১৯৯৯১ এর মাধ্যমে ৫লক্ষ টাকার একটি চেক প্রদান করা হয়। গত ৮ এপ্রিল জয়েন্ট ফিড উত্তরা ব্যাংকে ঐ চেকটি ২৫ লক্ষ টাকা দেখিয়ে উত্তলনের জন্য জমা দিলে। অনলাইন চেকিংয়ে ট্রাষ্ট্র ব্যাংক জাহানাবাদ ক্যান্টনমেন্ট শাখার ঐ একাউন্টে টাকা না থাকায় এবং চেকটি ওভাররাইটিং করে এডিট করায় ব্যাংক ম্যানেজার চেক প্রদান কারী ছায়রা পোল্ট্রি ফিডের মালিক শেখ হাবিবুর রহমানকে বিষয়টি অবহিত করেন। শেখ হাবিবুর ৫ লক্ষ টাকার চেক হস্তান্তরের কথা স্বিকার করে বলেন ৫ লাখকে ২৫লাখ করে জালিয়াতি করা হয়েছে। ছায়রা পোল্ট্রি ফিডের মালিক শেখ হাবিবুর রহমান জানান, আমি ব্যবসায়ীক লেনদেনের জন্য কোম্পানির প্রতিনিধি মার্কেটিং অফিসার মোঃ শামছুল হুদা জাহিদকে পাঁচ লক্ষ টাকার একটি চেক প্রদান করি কিন্তু চেকটি ঘষামাঝা করে ওভার রাইটিং করে পাঁচ লক্ষকে ২৫ লক্ষ টাকা করে জালিয়াতি করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে কোম্পানির মার্কেটিং অফিসার মোঃ শামছুল হুদা জাহিদ মুঠোফোনে জানান, তিনি জয়েন্ট ফিড লিমিটেডে কর্মরত থাকা কালিন সময়ে ছায়রা পল্ট্রি ফিডের মালিক শেখ হাবিবুর রহমানের দেওয়া পাঁচ লক্ষ টাকার একটি চেক আমি কোম্পানির এমডির কাছে পৌছে দিয়েছি। পাঁচ লক্ষ টাকা কিভাবে পঁচিশ লক্ষ টাকা হলো সেটা আমি বলতে পারবো না। তিনি আরো বলেন বর্তমানে আমি ঐ কোম্পানিতে চাকুরী করাছিনা।
এ ব্যাপারে ট্রাষ্ট্র ব্যাংক জাহানাবাদ ক্যান্টনমেন্ট শাখার ম্যানেজার মোঃ আরিফ মুঠোফেনে জানান, জামাকৃত চেকটি জয়েন্ট ফিড কর্তৃপক্ষ ক্যাশের জন্য উত্তরা ব্যাংককে জমা দিলে ক্লিয়ারিং হাউজে চেক করার পর বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে তথ্যটি আমাদের ব্যাংকে আসলে আমদের ক্লিয়ারিং হাউজ টাকা পোষ্টিং দেওয়ার সময় দেখা যায় ঐএকাউন্টে টাকা নাই এবং জমাকৃত চেকটি টাকার অংকের স্থানে ঘষামাঝা করে অভাররাইটিং করা হয়েছে। অংে ক লেখা ৫ এর আগে ২ বসিয়ে ২৫ করা হয়েছে এবং কথায় লেখা পাঁচকে শ যোগ করে পঁচিশ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে জয়েন্ট ফিড লিমিটেডের বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির অভিযোগে মামলা করা হবে বলে জানিয়েছেন ছায়রা পল্ট্রি ফিডের মালিক শেখ হাবিবুর রহমান।#