জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে খুলনায় ট্যাংকলরী শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার

0
548

এম জে ফরাজী, খুুলনাটাইমস:
ট্যাংকলরীর সেফটি বাম্পার অপসারণ না করা, রাস্তায় পুলিশি হয়রানী বন্ধ করা ও সড়ক মেরামত করার দাবীতে সকাল ৮টা থেকে বাংলাদেশ ট্যাংকলরী ওনার্স এ্যাসোসিয়েশন, বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নসহ ৪টি সংগঠন ধর্মঘট করেছে। খুলনার ৪টি তেল ডিপো থেকে তেল উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। সোমবার রাতে জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে আজ মঙ্গলবার থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছে ট্যাংকলরী শ্রমিকরা।
গতকাল সকাল থেকে খুলনার খালিশপুরে অবস্থিত পদ্মা মেঘনা, যমুনা তেল কোম্পানী থেকে তেল উত্তোলন বন্ধ থাকায় খুলনাসহ ১৫ জেলায় তেল সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। শ্রমিকরা এসময় বিআইডিসি রোডসহ নতুন রাস্তা মোড় পর্যন্ত শতশত ট্যাংকলরী অবস্থান নেয়।
নেতারা জানান, গত রবিবার বিকাল ৪টায় ফরিদপুর থেকে তেল নিতে আসা ঢাকা- ঢ-৪৪০১৪৬ নং ট্যাংকলরী গোয়ালখালী মোড়ে একজন ম্যাজিস্ট্রেট সকল কাগজ পত্র থাকা সত্বেও মামলা দায়ের করে আটক দেখিয়ে খালিশপুর থানায় পাঠিয়েদেন। বিনা দোষে এভাবে ট্যাংকলরী আটক করায় ক্ষুব্ধ হয় মালিক শ্রমিক সহ এর সাথে সংশ্লিস্ট সংগঠন। তারা গতকাল সকাল থেকে খালিশপুরস্থ পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা ডিপো থেকে তেল উত্তোলন বন্ধ করে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরী শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি শেখ নুর ইসলাম।


সভায় বক্তৃতা করেন ট্যাংকলরী ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল গফ্ফার বিশ^াস, সাধারণ সম্পাদক শেখ ফরহাদ হোসেন, ট্যাংকলরী মালিক সমিতির সভাপতি সাজ্জাদুল করিম কাবুল, সাধারণ সম্পাদক শেখ মুরাদ হোসেন, শ্রমিক কল্যান সমিতির সভাপতি সুলতান মাহমুদ পিন্টু, সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম কালু, শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আলী আজিম, ওনার্স এ্যাসোসিয়েশন নেতা এস এম মাহবুবুল আলম, মোঃ হাবিবুর রহমান, গাজী হাফিজুর রহমান, আব্দুর রহিম দুদু মিয়া, মিজানুর রহমান মিজু প্রমুখ। বিকেলে খুলনা জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধির মাধ্যমে রাতে নেতাদের সমঝোতার জন্য বৈঠক আহŸান করেছেন। গতরাত সাড়ে আটটায় খুুলনা জেলা প্রশাসক আমিনুল ইসলামের আহŸানে তার সম্মেলন কক্ষে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ৪টি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে জেলা প্রশাসক আশ্বাসে মঙ্গলবার থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে তেল উত্তোলন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ট্যাংকলরী ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনসহ উক্ত ৪টি সংগঠন।