জলাবদ্ধতা নিরসনে সাড়ে ১৪ শ’ কোটি টাকার প্রকল্প জমা দিয়েছি : নবনির্বাচিত মেয়র

0
341

বিজ্ঞপ্তি: খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও নব নির্বাচিত মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক নগরবাসির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেছেন, আপনারা খুলনাকে তিলোত্তমা নগরীতে পরিণত করতে আমাকে নির্বাচিত করেছেন। আপনাদের সম্মান রক্ষার্থে ইতিমধ্যেই আমি জলাবদ্ধতা নিরসনসহ বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে সাড়ে ১৪ শ’ কোটি টাকার প্রকল্প জমা দিয়েছি। এই প্রকল্পের অনুমোদন পেলে খুলনাকে তিলোত্তমা নগরী গড়ার কাজ শুরু করবো ইনশাল্লাহ। তিনি আরো বলেন, উন্নয়ন বঞ্ছিত হওয়ায় খুলনার মানুষ যেমন আমাকে ভোট দিয়েছে। ঠিক একই কারনে গাজীপুরের মানুষ উন্নয়ন বঞ্ছিত হওয়ায় জাহাঙ্গীর আলমকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করেছে। তিনি বলেন, গাজীপুরের রাস্তাঘাট, ড্রেন এবং জলাবদ্ধতার কারনে চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। সেখানে সামান্য বর্ষা হলেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এসব কারনেই জনগণ বিএনপি’র থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। আর আওয়ামী লীগের প্রতি জনগণের আস্থা আছে বলেই জনগণ নৌকায় ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করেছে। তিনি জনগণের এই আস্থাকে ধরে রেখে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয় অর্জনের মধ্যদিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে চতুর্থবারের মত প্রধানমন্ত্রী করার জন্য দলের নেতাকর্মী এবং খুলনা বাসির প্রতি আহবান জানান।
শুক্রবার বিকাল ৪টায় শহীদ হাদিস পার্কে মহানগর শ্রমিক লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মহানগর শ্রমিক লীগ সভাপতি আবুল কাশেম মোল্লার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষের পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসময়ে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শ্রমিক নেতা মো. মোতালেব মিয়া, সৈয়দ এমদাদুল হক, মো. মাকলুকার রহমান, কাজী আব্দুল ওহাব, আব্দুর রহিম, সেলিম রাজু। এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. চিশতি সোহরাব হোসেন শিকদার, নুর ইসলাম বন্দ, শেখ মো. ফারুক আহমেদ, শ্যামল সিংহ রায়, মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, এ্যাড. নিমাই চন্দ্র রায়, অধ্যাপক আলমগীর কবীর, এ কে এম সানাউল্লাহ নান্নু, উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ আকরাম হোসেন, অসিত বরণ বিশ্বাস, শফিকুর রহমান পলাশ, কাউন্সিলর মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, কাউন্সিলর আমেনা হালিম বেবী, কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ আলী, কাউন্সিলর মাহফুজুর রহমান লিটন, কাউন্সিলর কনিকা সাহা সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।