চীনের ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগে আগ্রহী

0
408

অনলাইন ডেস্কঃ

বৈশ্বিক কারণে বাংলাদেশে সব ধরনের প্রভাব বাড়াতে চায় চীন। এই লক্ষে চীনা সরকারের লক্ষ্যকে এগিয়ে নিতে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিতে এগিয়ে এসেছে দেশটির ব্যবসায়ী সমাজ। জানা গেছে, দেশটির ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশের নানা খাতে মোটা অঙ্কের বিনিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশকে নিজেদের প্রভাবে রাখার জন্য ভারত ও চীন নানা কৌশলে এগিয়ে যেতে চাইছে।

জানা গেছে, নদীখনন, গাড়িশিল্প, কৃষি ও সেচ, বিমানবন্দর নির্মাণসহ একাধিক খাতে চীনের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে। সম্প্রতি ‘চায়না-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরাম’ শীর্ষক এক সেমিনারে চীনের বিনিয়োগকারীরা এই আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের বাংলাদেশ মিশন থেকে সম্প্রতি গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় এই তথ্য জানান হয়।

চীনের বাংলাদেশ মিশন এবং চীনের শীর্ষ ৫০০ বিনিয়োগকারীদের সংগঠন যৌথভাবে এই সেমিনারের আয়োজন করে। সেমিনারের উদ্বোধন করেন চীনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম. ফজলুল করিম। এ সময় রাষ্ট্রদূত অনুষ্ঠানে চীনের বিনিয়োগকারীদের কাছে বাংলাদেশের অর্জন করা মাইলফলক সাফল্যগুলো তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক এবং সামাজিক খাতে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে। যার ফলাফল হিসেবে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হওয়ার মর্যাদা অর্জন করেছে।

তিনি বাংলাদেশের রূপকল্প ২০২১ এবং ২০৪১ তুলে ধরেন। রূপকল্প অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হতে চায়। এ জন্য অর্থনৈতিক খাতে, বিশেষ করে দ্রুত শিল্পায়নের দিকে বাংলাদেশ যেতে চায় বলে সেমিনারে চীনা ব্যবসায়ীদের জানান বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত।

ফজলুল করিম আরো বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগের প্রচুর সম্ভাবনাময় খাত রয়েছে। বাংলাদেশ এখন বিশ্বের বিনিয়োগকারীদের জন্য আদর্শ জায়গা।

আর বাংলাদেশেরও বিদেশী বিনিয়োগের প্রয়োজন। তাই চীনের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগের সুবিধা নিতে পারে। বিনা শুল্কে যন্ত্রপাতি আমদানি, বিনিয়োগ করা মূলধনের শতভাগ ফিরিয়ে নেয়ার নিরাপত্তাসহ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য সরকার যেসব ছাড় দিচ্ছে তা চীনের ব্যবসায়ীদের কাছে তুলে ধরেন তিনি। চীনের বেসরকারী প্রতিষ্ঠান সেনডংয়ের মহাব্যবস্থাপক ইয়ন কিগান সেমিনারে বাংলাদেশে বিনিয়োগের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন।

উল্লেখ্য, চীনা এই কোম্পানি বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়ন খাতে কাজ করছে।