চিরনিদ্রায় শায়িত রাজনীতিক গাজী আব্দুল হাদী

0
887

এস রফিক, ডুমুরিয়া :
হাজারো মানুষের ভালোবাসা আর ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলী’র মধ্যদিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বর্ষীয়াণ রাজনীতিক আলহাজ্ব গাজী আব্দুল হাদী। সোমবার বিকালে গাজী আব্দুল হাদীর গ্রামের বাড়ি ডুমুরিয়ার শাহপুরের পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়। এ্যাম্বুলেন্সে তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি ডুমুরিয়া উপজেলার শাহপুর বাজারে পৌঁছালে তার আত্মীয়-স্বজন ও শুভাকাংখীরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এসময়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার পেশাজীবি মানুষের ঢল নামে। তারা হাদী’র মরদেহে শ্রদ্ধার নিদর্শন স্বরুপ পুস্পার্ঘ অর্পন করেন। সেখানে তৃতীয় দফা বাদআসরে নামাজে জানাজা শেষে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান খান শাকুর উদ্দিনের সভাপতিত্বে এক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে মরহুমের আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ দোয়া ও প্রার্থনা করা হয় এবং আগামী শুক্রবার জুম্মাবাদ উপজেলার প্রত্যেক মসজিদে মরহুমের আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হবে বলে স্মরণ সভায় ঘোষনা দেয়া হয়।

এসময়ে বক্তব্যদেন জেলা আ’লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনার রশিদ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ এমপি, খুলনা-৬ আসনের সাবেক এমপি এ্যাডঃ সোহরাব আলী সানা, ডুমুরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনসুর, খুলনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিসার্কেল সজীব আহমেদ খান, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নুরউদ্দিন আল মাসুদ, জেলা আ’লীগ নেতা বিএম আব্দুস সালাম, কামরুজ্জামান জামাল, আক্তারুজ্জামান বাবু, বিএনপি নেতা মোশাররফ হোসেন মফিজ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সহকারী অধ্যাপক আলমগীর কবির, নুর ইসলাম বন্দ, জেলা পরিষদের সদস্য আ’লীগ নেতা সরদার আবু সালেহ, শোভা রানী হালদার, ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল খোকন, মোস্তফা সরোয়ার, সুরঞ্জিত বৈদ্য, শেখ রবিউল ইসলাম, রামপ্রসাদ জোয়াদ্দার, প্রতাপ রায়, শেখ দিদারুল হোসেন, জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহসভাপতি প্রফেসর ডঃ মাহাবুব উল ইসলাম প্রমুখ।
গত রবিবার রাত পৌনে ৯টার সময় ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার জীবনাবসান ঘটে। ত্যাগী ও নির্লোভ রাজনীতিক হিসেবে পরিচিত গাজী আব্দুল হাদীর মৃত্যুর খবর শুনে হাসপাতালে ছুটে যান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপিসহ মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ এমপি। ছুটে যান দলের আরো ডজন খানেক কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। প্রবীন এই নেতার মৃত্যুতে ডুমুরিয়াসহ খুলনা জেলা আওয়ামী পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। গতকাল সোমবার সকালে খুলনার নগরে হাদী’র মৃতদেহ পৌছালে প্রথমে তার নিরালা বাস ভবনে নেয়া হয়। পরে সকাল ১০টায় খুলনা জেলা আ’লীগের উদ্যোগে শহীদ হাদিস পার্কে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে সকাল সাড়ে ১১টায় ডুমুরিয়া উপজেলা আ’লীগের উদ্যোগে উপজেলা জামে মসজিদ চত্বরে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ে পুষ্পর্ঘ অর্পন করা হয়। এরপর অধ্যক্ষ মোঃ আমিনুর রহমানের নেতৃত্বে গাজী আব্দুল হাদীর মৃতদেহে শাহপুর মধুগ্রাম কলেজের শিক্ষক-কর্মচারী, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। গাজী আব্দুল হাদী ১৯৬৬ সালে শাহপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেন। ১৯৭১ সালের আগে ছাত্র ইউনিয়ন রাজনীতি দিয়ে তার এ রাজনীতিতে পদচারণা। তিনি বিএল কলেজ হতে এইচএসসি ও ¯œাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। ২০০৯ সালে হাদী আ’লীগের সমর্থন নিয়ে ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। বিলডাকাতিয়ায় পানি নিষ্কাশন আন্দোলনে নের্তৃত্ব দেয়ায় গাজী আব্দুল হাদী ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত কারাবরণ করেন। ১৯৮৩ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত একটানা রঘুনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে সৎ ও নিষ্ঠার সাথে তিনি দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি সাংস্কৃতিক মনা লোক ছিলেন। শাহপুর বাজারে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কালিপুজা অনুষ্ঠানে নিজ উদ্যোগে প্রতিবছর ব্যাপক আয়োজনে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করতেন আব্দুল হাদী। আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকার সময় হরতাল-অবরোধে মুজিব কোট গায় দিয়ে মিছিলের সামনের সারিতে থাকতেন এই ত্যাগী নেতা হাদী। তার মৃত্যুতে খুলনাসহ ডুমুরিয়ার রাজনীতিতে বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে গেলো বলে মনে করছেন দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। তিনি শাহপুর মধুগ্রাম কলেজ, শাহপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় দীর্ঘদিন পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি’র দায়িত্ব পালন করেন।