চন্নোইকে ফাইনালে উঠালনে ডু প্লসেসি

0
412

স্পোর্টস ডেস্কঃ
চেন্নাই সুপার কিংসকে বলতে গেলে একাই ফাইনালে তুললেন ওপেনার ফাফ ডু প্লেসিস। তার হার না মানা ৬৭ রানের কল্যাণে প্রথম কোয়ালিফায়ার ম্যাচে ২ উইকেটে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে হারিয়ে আইপিএলের ১১তম আসরের ফাইনালে উঠেছে চেন্নাই সুপার কিংস। এ নিয়ে রেকর্ড সাতবার ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলো ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস।

এর আগে ২০০৮, ২০১০, ২০১১, ২০১২, ২০১৩ এবং ২০১৫ সালে আইপিলের ফাইনালে খেলে চেন্নাই সুপার কিংস। এর মধ্যে ২০১০ ও ২০১১ সালে টানা দুইবার শিরোপা জেতে চেন্নাই। বাকি চারবার রানার্সআপেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের।

অপরদিকে আজ হেরে গেলেও ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ থাকছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের সামনে। আগামীকাল কলকাতা নাইট রাইডার্স ও রাজস্থান রয়্যালসের মধ্যকার এলিমিনেটর ম্যাচ বিজয়ীর সাথে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে জয়ী হতে পারলে ফাইনালে যেতে পারবে হায়দরাবাদ। আগামী ২৫ মে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের করা ১৩৯ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে চেন্নাই। কিন্তু একপ্রান্ত আগলে রাখেন ওপেনার ফাফ ডু প্লেসিস। উদ্বোধনী জুটিতে ব্যাট করতে নেমে ৪২ বলে ৫ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় ৬৭ রানে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন ডানহাতি এই অসি ব্যাটসম্যান।

১১৩ রানে ৮ উইকেট পতনের পর ক্রিজে আসেন চেন্নাইয়ের ডানহাতি ব্যাটসম্যান শার্দুল ঠাকুর। খেলা তখনো বাকি ১৩ বল। এর পরের ওভারে শার্দুল ঠাকুর ৫ বল মোকাবেলায় ৩টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৫ রান যোগ করলে শেষ ওভারে জয়ের জন্য চেন্নাইয়ের প্রয়োজন পড়ে ৬ রান।

সানরাইজার্স অধিনায়ক শেষ ওভারে আক্রমণের দায়িত্ব তুলে দেন ৩ ওভারে ৮ রান দেয়া পেসার ভুবনেশ্বর কুমারের হাতে। তখন স্ট্রাইকে ছিলেন অবিচল ফাফ ডু প্লেসিস। ডু প্লেসিসের যেন তর সইছিলো না। প্রথম বলটিই ভুবনেশ্বর কুমারের মাথার ওপর দিয়ে স্ট্রেইট ড্রাইভে ছক্কা হাঁকিয়ে ৫ বল বাকি থাকতেই দলকে জয়ের বন্দরে ভেড়ান। ১৯.১ ওভারে ৮ উইকেটে ১৪০ রান স্কোরবোর্ডে জমা করলে ২ উইকেটে জিতে যায় চেন্নাই। সেইসাথে ১১ আসরের মধ্যে সাতবারের মতো চেন্নাইয়ের ফাইনালে পৌঁছে দেন ডু প্লেসিস।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২২ রান আসে সুরেশ রায়নার ব্যাট থেকে। এছাড়া চাহার ১০ এবং ধোনি ১৮ বলে করেন ৯ রান। হায়দরাবাদের বোলারদের দাপটে শেন ওয়াটসন এবং আমবাতি রাইদু রানের খাতা খুলতে পারেননি।

হায়দরাবাদের সন্দীপ শর্মা, রশিদ খান এবং সিদ্ধার্থ কাউল দুটি করে এবং ভুবনেশ্বর কুমার একটি উইকেট নেন।

এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ১৩৯ রান করে হায়দরাবাদ। সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেন ৭ নম্বরে ব্যাট করতে নামা ক্রেগ ব্রেথওয়েট। অধিনায়ক উইলিয়ামসন করেন ১৫ বলে ২৪ রান। ইউসুফ পাঠান ২৯ বলে ২৪, গোস্বামী ৯ বলে ১২ এবং সাকিব আল হাসান ১০ বলে করেন ১২ রান।

চেন্নাইয়ের ডোয়াইন ব্র্যাভো নেন ২ উইকেট। এছাড়া দীপক চাহার, লাঙ্গি এনগিদি, শার্দুল ঠাকুর ও রবীন্দ্র জাদেজা একটি করে উইকেট নেন।

ম্যাচসেরা হন চেন্নাইয়ের ওপেনার ফাফ ডু প্লেসিস।