গরমে রোদের জন্য উপকারী শসা

0
760

লাইফস্টাইল ডেস্ক,
শরীরের বিষাক্ত উপাদান বের করা থেকে শুরু করে পানি শূন্যতা দূর করা পর্যন্ত সব কিছুতেই উপাকারী শসা।
‘ওরিফ্লেইম ইন্ডিয়া’র পুষ্টিবিদ সোনিয়া নারাঙ্গ ও ‘ডিভাইন অর্গানিকস’য়ের সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ সোনিয়া মাথুর জানাচ্ছেন শসার নানা উপকারী দিক।
* শতকরা ৯৫ শতাংশ পানিতে পূর্ণ থাকে শসা। ফলে এটি শরীর আর্র্দ্র রাখে, দূর করে বিষাক্ত উপাদান। পানি বেশি হওয়ার কারণে শসা পুরো শরীর থেকে বর্জ্য অপসারণে আদর্শ।
* শসায় আছে প্রচুর আঁশ, পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম। সবগুলোই রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। মূত্র উৎপাদন বাড়াতেও ভূমিকা আছে শসার, যার কারণ হল পটাশিয়াম ও পানি।
* শসা ত্বক ঠান্ডা রাখে। এতে থাকা পটাশিয়াম শুষ্ক ত্বকের জন্য অতন্ত উপকারী। ত্বকে সরাসরি শসার রস প্রয়োগ করলে মিলবে তরতাজা অনুভুতি।
* শসা চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে পারে। এজন্য চোখের উপর ফালি করে কাটা শসা আট থেকে ১০ মিনিট রেখে দিতে হবে। এতে চোখের ফোলাভাবও কমবে।
* শসার পানি ও প্রদাহরোধী উপাদান ত্বকের রোদপোড়াভাব দূর করে। শসার রসের সঙ্গে দই কিংবা লেবুর রস মিশিয়ে রোদপোড়া ত্বকে ১০ থেকে ১৫ মিনিট মাখিয়ে রাখলে উপকার পাবেন।
* পাকস্থলির অতিরিক্ত তাপ কমায় শসা। এই তাপকেই মুখের দুর্গন্ধের প্রধান কারণ ধরা হয়। ফালি করে কাটা শসা মুখে নিয়ে উপরের তালুতে ৩০ সেকেন্ড জিহ্বা দিয়ে চেপে ধরে রাখুন। শসায় থাকা ফটো-রাসায়নিক উপাদান দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলবে।
* শসার দানা হল পটাশিয়াম এবং ভিটামিন ই’য়ের গুদামঘর। যা বলিরেখা, বয়সের ছাপ, কালো দাগ ইত্যাদি দূর করতে অনন্য ভুমিকা রাখে। নিয়মিত পানির সঙ্গে শসার ফালি যোগ করে পান করলেও ত্বক সুস্থ থাকবে।
* শসার আরেকটি উপাদান হল সিলিকা, যা নখ ও চুলের জন্য উপকারী। হাত পায়ের নখ শক্ত করার পাশাপাশি চুল গজাতেও কার্যকর এই সবজি।