গণবিজ্ঞপ্তি : প্রিন্ট ও অনলাইন ভিন্নতা থাকলে, অনলাইন ভার্সনের জন্য আলাদা নিবন্ধন করতে হবে

0
60

তথ্য বিবরণী
দেশের বিদ্যমান কাগজ ও সম্প্রচারনির্ভর জাতীয় গণমাধ্যমগুলো তথ্য-উপাত্ত ও সম্প্রচার ইন্টারনেটে প্রকাশ করছে। ইতোমধ্যে পাঠকের কাছে অনলাইন গণমাধ্যমের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশে অনলাইন গণমাধ্যমের সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে অনলাইনে প্রকাশিত গণমাধ্যমের বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নিয়ে সরকার কর্তৃক জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৭ (সংশোধিত ২০২০) প্রণয়ন করা হয়েছে। উক্ত নীতিমালায় সকল অনলাইন গণমাধ্যমকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে নিবন্ধন গ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
তবে ছাপাখানা ও প্রকাশনা (ঘোষণা ও নিবন্ধিকরণ) আইন, ১৯৭৩ অনুযায়ি ডিক্লারেশন দিয়ে যারা ছাপানো পত্রিকা প্রকাশ করেছেন অথবা সম্প্রচারের জন্য লাইসেন্সপ্রাপ্ত হয়ে সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তাদের ই-পেপার অনলাইনে প্রকাশের জন্য গণমাধ্যম হিসেবে নতুন করে নিবন্ধন করতে হবে না। প্রিন্ট ও অনলাইন ভার্সনের ভিন্নতা থাকলে অনলাইন ভার্সনের জন্য আলাদা নিবন্ধন করতে হবে।
সম্প্রচারের জন্য সরকার থেকে লাইসেন্সপ্রাপ্ত টেলিভিশন চ্যানেল ও বেতার তাদের হুবহু অনুষ্ঠান অনলাইনে প্রচারের ক্ষেত্রে নিবন্ধন লাগবে না। তবে লাইসেন্সপ্রাপ্ত টেলিভিশন চ্যানেল ও বেতার নিউজপোর্টাল হিসেবে প্রচার কার্য পরিচালনার জন্য উক্ত নীতিমালার আওতায় পৃথকভাবে নিবন্ধন করতে হবে।
সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে, খুলনা জেলায় কিছু কিছু ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান(নিউজ পোর্টাল/আইপি টিভি/ইন্টারনেট রেডিও) নিবন্ধন গ্রহণ ব্যতিরেকে অনলাইন মাধ্যমে সংবাদ, তথ্য-উপাত্ত, অনুষ্ঠান ও বিজ্ঞাপন প্রকাশ এবং প্রচার করছেন, যা এই নীতিমালার পরিপন্থী।
জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৭ (সংশোধিত ২০২০) অনুযায়ি অনলাইনে সংবাদ, তথ্য-উপাত্ত, অনুষ্ঠান ও বিজ্ঞাপন প্রকাশ এবং প্রচার করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা যাচ্ছে। উক্ত নীতিমালা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। খুলনার জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এসকল তথ্য জানানো হয়েছে।