গণতন্ত্র ও কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি জিম্বাবুয়ের নতুন নেতার

0
335

টাইমস ডেস্ক :
জিম্বাবুয়েতে রবার্ট মুগাবের শাসনামলের অবসানের পর নতুন গণতন্ত্রের বিকাশ এবং কর্মসংস্থানের আশ্বাস দিয়েছেন দেশটির নতুন নেতা এমারসন ম্যানানগাগওয়া।

আগামী শুক্রবারই তিনি দেশটির নতুন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বলে জিম্বাবুয়ের সরকারি গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বিবিসি।

মুগাবে প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগ করার পর বুধবার দেশে ফেরেন ম্যানানগাগওয়া। দক্ষিণ আফ্রিকায় আত্মগোপনে থাকা জিম্বাবুয়ের এ নেতা দেশে ফিরে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে এক ভাষণে সেনাবাহিনীকে ধন্যবাদ দেন এবং সবাইকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান।

একইসঙ্গে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে তার পার্শ্ববর্তী দেশ, আফ্রিকান কমিউনিটি এবং বহির্বিশ্বের সহায়তার প্রয়োাজনের কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

রাজধানী হারারেতে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বক্তৃতায় ম্যানানগাগওয়া অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের কথাও বলেন। ম্যানানগাগওয়া বলেন যে, ‘আমি আপনাদের সেবক হওয়ার অঙ্গীকার করছি। আমি সকল দেশপ্রেমিক জিম্বাবুইয়ানদের একতাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানাই।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই একসঙ্গে কাজ করবো। এখানে কেউই কারো চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ নন। আমাদের পরিচয় আমরা জিম্বাবুয়ের নাগরিক। আমরা আমাদের অর্থনীতিকে চাঙা করতে চাই, দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনতে চাই। আমরা চাই কাজ, কাজ এবং কাজ।’

ম্যানানগাগওয়ার বেকারত্ব অবসানের এই ঘোষণায় জানু-পিএফ পার্টির সদরদফতরের সামনে উল্লাসে ফেটে পরে জনতা।

ধারণা করা হয়, দেশটিতে প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষই কর্মহীন।

সাবেক এই ভাইস প্রেসিডেন্ট আগামী শুক্রবারই রবার্ট মুগাবের স্থলাভিষিক্ত হয় নতুন প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে জিম্বাবুয়ের সরকারি টেলিভিশন।

ক্ষমতাসীন দল জানু-পিএফ পার্টির এক মুখপাত্র জানান, ৭১ বছর বয়সী নতুন এই নেতা ২০১৮ সেপ্টেম্বরের সাধারণ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকছেন।

প্রসঙ্গত, এমারসন ম্যানানগাগওয়াকে ভাইস প্রেসিডেন্টের পদ থেকে মুগাবে বরখাস্ত করার পরই দেশটির নিয়ন্ত্রণ নেয় সেনাবাহিনী। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার পদত্যাগ করেন মুগাবে।

মুগাবের পদত্যাগের মধ্য দিয়ে জিম্বাবুয়েতে তার ৩৭ বছরের শাসনের অবসান হলে দেশে ফেরার আগে জিম্বাবুয়ের ভবিষ্যৎ প্রেসিডেন্ট দেখা করেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার সঙ্গে।