খুলনা মেট্রোপলিটন যাত্রী ও পণ্য পরিবহন কমিটি এবং সড়ক নিরাপত্তা কমিটির বিশেষ সভা

0
79

নিজস্ব প্রতিবেদক
মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় কেএমপি’র সদর দপ্তরস্থ কনফারেন্স রুমে পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক, বিপিএম (বার), পিপিএম-সেবা সভাপতিত্বে খুলনা মেট্রোপলিটন যাত্রী ও পণ্য পরিবহন কমিটি এবং সড়ক নিরাপত্তা কমিটির বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
কেএমপি’র পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক, বিপিএম (বার), পিপিএম-সেবা সভায় উপস্থিত সকলকে সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি বক্তব্যে বলেন, “সড়ক দূর্ঘটনার অন্যতম কারন ড্রাইভার কতৃক ঙাবৎ ঝঢ়ববফ, ঙাবৎ খড়ধফরহম, ঙাবৎ ঞধশরহম, ঙাবৎ ঈড়হভরফবহপব, ঙাবৎ ঊীযধঁংঃরড়হ, অদক্ষ ড্রাইভার বা ড্রাইভারের পরিবর্তে ঐবষঢ়বৎ দিয়ে গাড়ি চালানো। বিরতী বা বিশ্রাম না নিয়ে ড্রাইভারদের বিরামহীন গাড়ি চালানো এবং পথচারী, যাত্রী ও চালকদের ট্রাফিক আইন না মানা। এখন দূর্ঘটনার অন্যতম কারণ হলো মহাসড়কে ফিটনেস বিহিন গাড়ি চলাচল, সড়কে পাল্লা দিয়ে গাড়ি চালানো। দুর্ঘটনা রোধে সচেতনতা আগে জরুরি এবং তা চালক-যাত্রী উভয়ের ক্ষেত্রে। সিগনালিং বা ট্রাফিক ব্যবস্থা আধুনিকায়নের করতে হবে। রোড-সংকেত সম্পর্কে চালক-যাত্রীর পরিষ্কার ধারণা দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। সড়কে ট্রাফিক শৃংখলা রক্ষায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, চালক, মালিক এবং যাত্রী সাধারণের শতভাগ আন্তরিক হতে হবে। শুধু আইন করে দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব নয়। সর্বাগ্রে সচেতনতা জরুরি আর ক্ষেত্র বিশেষ সংশ্লিষ্টদের বিবেক জাগ্রত হওয়া দরকার।” এছাড়াও তিনি পথচারীদের ফুট ওভার ব্রীজ, আন্ডারপাস বা জেব্রা ক্রসিং ব্যাবহার না করা সহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন।
এ সময় কেএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (এএন্ডও) সরদার রকিবুল ইসলাম, বিপিএম-সেবা; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক এন্ড প্রটোকল) মোছাঃ তাসলিমা খাতুন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (সদর) অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন; বিশেষ পুলিশ সুপার (সিটিএসবি) অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত রাশিদা বেগম, পিপিএম-সেবা; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মনিরা সুলতানা এবং বিআরটিএ, খুলনার বিভাগীয় পরিচালক (ইঞ্জি.) মোঃ মাসুদ আলম-সহ বিআরটিএ’র অফিসারবৃন্দ ও যাত্রী ও পণ্য পরিবহন এবং সড়ক নিরাপত্তা কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।