খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির দায়িত্ব গ্রহণ ও শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ

0
721

মহান মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে শহিদ মিনারে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণের মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু করে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নব-নির্বাচিত শিক্ষক সমিতি। নির্বাচন হয় ২৪ ডিসেম্বর আর দায়িত্ব হস্তান্তর হয় ০৭ জানুয়ারি। দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানটি সত্যিকার অর্থেই শিক্ষকদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। কর্মক্ষেত্রে থাকা প্রায় সকল শিক্ষকই এদিন উপস্থিত ছিলেন, বিজয়ী শিক্ষকগণের পাশাপাশি ছিলেন বিজিত শিক্ষকবৃন্দ। সদ্যবিদায়ী সভাপতি প্রফেসর সরদার শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন নব-নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক।
নব-নির্বাচিত সভাপতি প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন তাঁর বক্তব্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যমান বিশ্বমানের শিক্ষার পরিবেশের কথা উল্লেখ করে বলেন, এর সমস্ত কৃতিত্ব সম্মানিত শিক্ষকগণের। তাঁদের নিষ্ঠা ও নিবেদনই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এক বিদ্যাপীঠে পরিণত করেছে। এছাড়া খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম গর্ব এই যে, এখানে লেজুড়বৃত্তিক রাজনীতির চর্চা নেই। ফলে গত ২৬ বছরে রাজনৈতিক হানাহানিতে একটিও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাজনীতিবিমুখও নয়। যেকোনো জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠান তাঁরা শ্রদ্ধার সাথে পালন করে, অন্তরে ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। এছাড়া পারস্পরিক শ্রদ্ধা, সহযোগিতা ও সমতাভিত্তিক শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখার মাধ্যমে তারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম চেতনা: মানবিক মর্যাদা, সাম্য ও ন্যায়-ধারণার চর্চার প্রতি যতœবান। শিক্ষার্থীদের এই মহান চেতনায় চালিত করবার জন্য তিনি বিশেষত অগ্রজ শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং সকল শিক্ষককে সাথে নিয়ে শিক্ষা ও দর্শনের এই চর্চাকে আরও বেগবানরূপে এগিয়ে নেবার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
খুবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং পরিবেশ বিষয়ে নব-নির্বাচিত সভাপতি বলেন, এখানে শিক্ষক সমিতির নির্বাচন একটি স্বতঃস্ফূর্ত ও স্বাভাবিক প্রক্রিয়া, এটি একটি উৎসব; এখানে শিক্ষগণের মর্যাদাহানিকর কোনো ঘটনা কিংবা নেতিবাচক প্রচারণার নজির নেই, ভবিষ্যতেও এমনটি ঘটবে না বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সভাপতি তাঁর বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে বিজিত সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক পদপ্রার্থী ড. শামিম আহমেদ কামাল উদ্দিন খান ও শেখ সিরাজুল হাকিমকে মঞ্চে আহŸান করেন। বিজিত প্রার্থীদ্বয় বিজয়ী শিক্ষকগণকে অভিনন্দন জানিয়ে সম্মিলিতভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেন।
বিজয়ী শিক্ষকের এই ঔদার্য, বিজিতের এই সৌহার্দ্য এবং সম্মিলনের এই নন্দন আগামীর জন্য অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে রইলো। খুবি শিক্ষক সমিতির নব-নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক আবু শামীম মোহাম্মদ আরিফ তাঁর বক্তব্যে সভাপতির নেতৃত্বে এবং আর সকল সদস্যগণকে সাথে নিয়ে প্রগতিশীল পথচলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সকল কর্মকাÐে শিক্ষকগণের অকুণ্ঠ সহযোগিতা প্রার্থনা করেন তিনি। সদ্যবিদায়ী সাধারন সম্পাদক তাঁর বক্তব্যে বিদায়ী সমিতি কর্তৃক গৃহিত পদক্ষেপসমূহের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য নতুন পর্ষদকে আহŸান জানান।
অনুষ্ঠানের সভাপতি এবং বিদায়ী সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলাম তাঁর বক্তব্যে বিদায়ী সমিতির গৃহিত অসংখ্য কর্মকাÐে যৌক্তিক সমর্থন প্রদানের জন্য সকল শিক্ষককে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান এবং প্রগতিমুখি অভিযাত্রায় নব-নির্বাচিত পর্ষদের প্রতি শুভকামনা ব্যক্ত করেন। খুবি শিক্ষক সমিতির দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। তিনি বিজয়ী শিক্ষকগণকে অভিনন্দন জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি