খুলনা জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

0
330

তথ্য বিবরণী :
খুলনা জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির নভেম্বর মাসের সভা আজ (১৯ নভেম্বর) সকালে খুলনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোঃ আমিন উল আহসান।
সভায় জানানো হয়, নগরীর মার্কেটসমূহ বিশেষ করে হার্ডওয়ার দোকান ও ফলের দোকানের সামনে আবর্জনা ফেলে রেখে দেয়া হয়। পরবর্তীতে সেগুলো ড্রেনে ফেলার কারনে নগরীতে জলাবদ্ধতা ও পরিবেশ দূষণ হয়। এ ব্যাপারে খুলনা সিটি কর্পোরেশনকে নজরদারি বাড়ানোর জন্য অনুরোধ করা হয়।

স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়, খুলনার বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে জনবল সংকট দুরীকরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্পেশাল বিসিএস এর মাধ্যমে প্রায় চার হাজার এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগ হলে সমস্যা কিছুটা কমবে।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সুপেয় পানি সরবরাহের জন্য জেলা পরিষদের ০৬টি পুকুর পুন:খননের কাজ টেন্ডার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। এছাড়া ভূগর্ভস্থ সুপেয় পানির স্তর নিরূপনে প্রতিটি উপজেলায় ১৫০০ ফুটের অধিক গভীরতার প্রয়োজনীয় সংখ্যক টেস্ট টিউবওয়েল স্থাপনের কার্যক্রম গৃহীত হয়েছে।

উপপরিচালক বিভাগীয় জেলা তথ্য অফিস জানান, তথ্য মন্ত্রণালয় সরকারের প্রতিটি দপ্তরের উন্নয়ন কার্যক্রমের স্থিরচিত্র নিয়ে একটি প্রকাশনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এজন্য প্রতিটি ডিপার্টমেন্টের উন্নয়ন চিত্র আগামী ৩০ শে নভেম্বরের মধ্যে জেলা তথ্য অফিসে প্রেরণ করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মো: আমীন উল আহসান বলেন, প্রত্যেকটি বিভাগের উন্নয়ন কার্যক্রমের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে তৃণমূল জনগনের জীবনমানে ইতিবাচক পরিবর্তন আনা। এজন্য উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা অপরিহার্য। জনগন যেন প্রত্যেক দপ্তরের উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পর্কে সহজে জানতে পারে এজন্য স্ব-স্ব ওয়েব সাইটগুলো হালনাগাদ রাখতে হবে।

সভাপতি আরও বলেন, খুলনা বিভাগে বাল্য বিবাহের হার তুলনামূলকভাবে বেশি। ইদানীং ইভটিজিং এর মত সামাজিক অবক্ষয় বেড়ে গেছে। এ ব্যাপারে অভিভাবক, শিক্ষকসহ সমাজের প্রতিটি নাগরিককে এগিয়ে আসতে হবে। এ ধরনের অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

সভাশেষে জেলা প্রশাসক জানান, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি লাভ করায় আগামী ২৫ নভেম্বর সকাল ১০ টায় সারাদেশের মত খুলনায়ও বর্ণাঢ্য আনন্দ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। ঐ দিন খুলনার শিববাড়ী থেকে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করবে। তিনি এ আয়োজনে সামিল হওয়ার জন্য সকল সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,ব্যবসায়ী, পেশাজীবী সংগঠনসহ আপামর জনসাধারনের প্রতি আহŸান জানান।

সভায় জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, সিভিল সার্জন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, কেসিসি প্রতিনিধিসহ কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ অংশগ্রহণ করেন।