খুলনা জেনারেল হাসপাতালে পরিচ্ছন্ন কর্মী সরবরাহের দাবিতে মেয়রের নিকট স্মারক লিপি পেশ

0
519

খবর বিজ্ঞপ্তি:
খুলনা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে থেকে ডাষ্টবিন অপসারণ ও পরিচ্ছন্ন কর্মী সরবরাহের দাবিতে মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের নিকট স্মারক লিপি পেশ করা হয়েছে। (২০মার্চ) মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় খুলনা জেলা স্বাস্থ্য সেবা গ্রহীতা ফোরামের পক্ষ থেকে মেয়র দপ্তরে এ স্মারক লিপি পেশ করা হয়। স্মারক লিপিতে উল্লেখ করা হয়,বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওয়েভ ফাউন্ডেশন ইউনিসেফ এর আর্থিক সহযোগিতায় ,খুলনা জেলায় মা, নবজাতক ও শিশু স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থায় জবাবদিহিতা শক্তিশালীকরণ এবং সেবাগ্রহীতাদের অধিকার নিশ্চিতকরণে সহায়তা প্রদান (এমএনসিএইচ) প্রকল্পের অধীনে জেলা স্বাস্থ্য সেবা গ্রহীতা ফোরাম গঠন করা হয়েছে। ফোরাম স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় সভা আয়োজন করে থাকে। সভায় হাসপাতালের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। আলোচনায় দেখা যায়, খুলনা জেনারেল হাসপাতালে পরিচ্ছন্নতা কর্মীর স্বল্পতা প্রকট। এ জন্য হাসপাতালে পরিচ্ছন্নতা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ বিষয়ে জেলা স্বাস্থ্য সেবা গ্রহীতা ফোরাম খুলনা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে খুলনা জেনারেল হাসপাতালে দু’ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী পেতে পারে তার দাবি করেছে। একই সাথে, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে সিটি কর্পোরেশনের একটি খোলা ডাষ্টবিন আছে। উক্ত ডাষ্টবিনের দূর্গন্ধের কারনে হাসপাতালের পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। জরুরী বিভাগ সব সময় রোগীর ভীড় থাকে মূমুর্ষ রোগীরা ডাষ্টবিনের দূর্গন্ধের কারনে অশ্বস্তিবোধ করে এবং ডাষ্টবিনের নোংরার কারণে হাসপাতালে রোগজীবানু সংক্রমনের আশংকা রয়েছে। ডাস্টবিনটি ইতোমধ্যে সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুর রাজ্জাক অন্যত্র সরানোর জন্য মেয়রের নিকট চিঠি দিয়েছে। ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, ডাস্টবিনটি সরিয়ে ভৈরব নদের পাশে ( অস্থায়ী ভাবে ইটবালু বিক্রির স্থান) স্থাপন করতে। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও সিভিল সার্জনের চিঠির কোন বাস্তবায়ন নেই। এতে করে হাসপাতালে আসা রোগীসহ অন্যান্যরা দুগর্ন্ধের মধ্যে দিন যাপন করছেন। এ সময় মেয়র বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা স্বাস্থ্যসেবা গ্রহীতা ফোরামের সভঅপতি এড. মোমিনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান সুমন, সহ-সভঅপতি রেহেনা আক্তার, এম নাজমুল আজম ডেভিড, যুগ্ম সম্পাদক সীমা রায়, সদস্য এড. অশোক কুমার সাহা, রোজি রহমান, শেখ আব্দুল হালিম, ওয়েভ ফাউন্ডেশনের প্রোগ্রাম অফিসার গোলাম কিবরিয়া, সহকারি প্রোগ্রাম অফিসার শরিফুল আলম লিটন প্রমূখ।