খুলনায় হোটেল থেকে যুবকের ও ঘের থেকে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার

0
314

নিজস্ব প্রতিবেদক:
খুলনা নগরীতে আবাসিক হোটেল থেকে এক যুবকের এবং মৎস্য ঘের থেকে এক অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার পুলিশ নগরীর সদর এবং আড়ংঘাটা থানা এলাকা থেকে এ দুটি মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
পুলিশ জানায়, খুলনা মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র হোটেল আজমল হোসেন থেকে ইনসান হোসেন মোল্লা (২৬) নামের এক মোবাইল শো রুমের মালিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে উক্ত হোটেলের ৫০২নং রুম থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশের মুখ ও পুরুষাঙ্গ গ্যাস লাইটের আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। নিহত ইনসান মোল্লা নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার চাচুড়িয়া বাজার এলাকার ইনজিন মোল্লার ছেলে।
সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) টিপু সুলতান বলেন, স্বল্প সময় বিশ্রাম নেয়ার জন্য হোটেলে ওঠেন দুই তরুণ-তরুণী যে কারণে তাদের নাম-ঠিকানা রাখা হয়নি। কিন্তু তারা আর দরজা না খোলায় সন্দেহ দেখা দেয়। বিষয়টি থানায় জানানো হলে সোমবার পুলিশ দরজা ভেঙ্গে লাশটি উদ্ধার করে। ওই তরুণীর কোন সন্ধান মেলেনি। উদ্ধার কালে নিহত তরুণের দুই হাত ও দুই পা বাঁধা এবং মুখ ও পুরুষাঙ্গ আগুনে ঝলসে দেওয়া ছিল। পুলিশ ওই যুবতীকে খুঁজছেন। তাকে পেলে ঘটনার রহস্য উন্মোচনে সহজ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
অপর দিকে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর আড়ংঘাটা বাইপাস সড়কের বরইতলার একটি মাছের ঘের থেকে এক ব্যক্তি (৫০)’র লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
আড়ংঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী রেজাউল করিম জানান, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে আড়ংঘাটা বাইপাস সড়কের বরইতলার একটি মাছের ঘের থেকে এক অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় নিহতের শরীরে কোনো কাপড় ছিল না।
ওসি আরো বলেন, তার কপালের মাঝ বরাবর ও দুই উরুতে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত তার পরিচয় সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় নগরীর আড়ংঘাটা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।