খুলনায় স্ত্রীর পরকিয়ায় স্বামীকে তালাক : সম্পদ আত্মসাতের অভিযোগ

0
346

ফুলবাড়ীগেট(খুলনা) প্রতিনিধিঃ
স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে পিতা-মাতাসহ আত্মিয় স্বজনকে ত্যাগ করে সম্পদ লোভী স্ত্রীকে অর্থ সম্পদ দিয়েও শেষ রক্ষ হলো না। স্ত্রীর পরোকিয়ার কথা জেনে চাকুরী হতে অব্যহতি দিয়েও ধরে রাখতে পারলো না স্ত্রী রাবেয়া(২৮)কে। সর্বস্ব আত্মসাৎ করে স্বামীকে তালাক দিয়ে এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী ব্যািক্তর মদদে নিজ বাসায় উঠতে পারছেনা সেনা সদস্য সাইফুল আলম(৩৩)। এ ব্যাপারে জীবনের নিরাপত্তায় থানায় সাধারণ ডারয়ী করা হয়েছে।
অভিযোগে জানাগেছে, নগরীর খানজাহান আলী থানাধীন সোনালী জুট মিলস পারিবারিক কলোনীর মোঃ হাবিবুর রহমানের পুত্র সেনা সদস্য মোঃ সাইফুল আলমের সাথে মুন্সিগঞ্জ জেলার টুঙ্গিবাড়ী থানার নয়না গ্রামের আলাউদ্দিন শেখের কণ্যা রাবেয়ার সাথে ২০০৭ সালের ১৩ আগষ্ট বিবাহ হয়। বিবাহের পর তাদের সংসারে একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়। সুখের সংসার ধরে রাখতে স্ত্রীর কথায় পিতা-মাতাকে ত্যাগ করে আড়ংঘাটা থানাধীন আড়ংঘাটা উত্তরপাড়ায় খায়রুল শেখের বাড়ীতে বাসা ভাড়া নেন সেনা সদস্য সাইফুল। স্ত্রীর ইচ্ছা পুরনে শালককে বিদেশে পাঠানো, তার নামে জমিক্রয়, মিশনে থাকাকালিন সময়ে বেতনের সম্পন্ন টাকা উত্তাল সহ সব কিছুই করা হয় তার সুখের জন্য কিন্তু স্ত্রী জড়িয়ে পড়ে পরোকিয়ায়। চাকুরীর সুবাদে কংগোতে মিশনে ১ বছর বাইরে থাকায় এবং পরবর্তিতে বান্দরবান ১৮ ইষ্ট বেঙ্গল আলী কদম সেনানিবাসে থাকায় স্ত্রী রাবেয়া বাগেরহাটের মামাতো ভাইয়ের সাথে পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে। বাসায় অপরিচিত লোকের আশা যাওয়া শুরু হয়। বিষয়টি সাইফুল জানতে পেরে যাওয়ায় তাকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। স্ত্রী-সন্তানের শুখের কথা বিবেচনায় সেনা সদস্য সাইফুল চাকুরী থেকে অব্যহতি নিয়ে বাড়ী ফিরতে অফিসের ঠিকানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয় স্ত্রী রাবেয়া বেগমের তালাকনামা। মোকাম বাগেরহাটের নোটারী পাবেিকর কার্যালয় থেকে পাঠানো তালাকনামা(যার নং ১৬০০ তাং ৯/১০/১৭) নিয়ে বাড়ী ফিরে এলে সাইফুলের স্ত্রী রাবেয়া এলাকার প্রভাবশালী কতিপয় ব্যক্তির মদদে তাকে বাসায় উঠতে না দিয়ে তাকে বিভিন্ন ভাবে হামলা মামলা এবং জীবন নাশের হুমকি প্রদান করছে। এ ব্যাপারে চাকুরী থেকে অব্যহতি দেওয়া সেনা সদস্য সাইফুল জীবনের নিরাপত্তায় খানজাহান আলী থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করেছেন(যার নং৩৬৪ তাং ৯/১২/১৭)