খুলনায় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলায় নিন্দা জ্ঞাপন অব্যাহত : প্রত্যাহারের দাবিতে অনঢ় সুধীজনেরা

0
492

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনাটাইমস:
দৈনিক সময়ের খবরের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কাজী মোতাহার রহমান ও নিজস্ব প্রতিবেদক সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে খুলনা চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তার দায়ের করা ৫৭ ও ৬৬ ধারার মামলা প্রত্যাহারের দাবি তুলেছে বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠণ। বাংলাদেশ আঞ্চলিক সংবাদপত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি, খুলনার সাংবাদিক সমাজ, পেশাজীবী ও রাজনৈতিক সংগঠণে এ বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

সংবাদকর্মিদের হয়রানির জন্য এধরণের মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিভিন্ন সংগঠণের নেতৃবৃন্দ। এর আগে অনুরুপ বিবৃতি দেন খুলনা প্রেসক্লাব, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়ন (কেইউজে), মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়ন (এমইউজে) সহ সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি দলগুলো।

আবার একই দাবিতে আগামীকাল বুধবার প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছে খুলনা প্রেসক্লাব। এতদস্বত্ত্বেও আলোচিত ও সমালোচিত ওই মামলাটি প্রত্যাহার না হওয়ায় স্ব স্ব মহলে ক্ষোভ পূঞ্জিভূত হয়ে উঠছে। এখনই দাবি মেনে নেওয়া না হলে অনাকাংখিত যেকোনো পরিস্থিতি সৃষ্টির দায় সংশ্লিষ্ট মহলকে নিতে হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারিত হচ্ছে।

বাংলাদেশ আঞ্চলিক সংবাদপত্র পরিষদ : সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আলী আহমেদ ও মহাসচিব মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন মঞ্জু এক যৌথ বিবৃতিতে খুলনার সাংবাদিক কাজী মোতাহার রহমান ও সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারার মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।
বিবৃতিতে বলা হয়, সাংবাদিকরা সমাজের, দেশের তথা জাতির বিবেক। নিজেদের জীবন বাজি রেখে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। তাদের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা হোক। তাছাড়া এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে প্রভাবিত করে সাংবাদিকদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। হয়রানিমূলকভাবে খুলনা চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তার দায়ের করা ৫৭ ও ৬৬ ধারার এ মামলা প্রত্যাহার করা না হলে সাংবাদিক সমাজ কঠোর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে।

রূপসা প্রেসক্লাব: দৈনিক সময়ের খবরের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কাজী মোতাহার রহমান বাবু ও নিজস্ব প্রতিবেদক সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় হয়রানি মূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন রূপসা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। বিবৃতি দাতারা হলেন ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা এস এম আবু সাইদ, উপদেষ্টা এ্যাড. সুজিত অধিকারী, মো. আনোয়ার হোসেন, সামসুজ্জামান শাহিন, সভাপতি রবিউল ইসলাম তোতা, সাধারন সম্পাদক তরিকুল ইসলাম ডালিম, সাবেক সভাপতি এস এম মাহবুবুর রহমান, সাইফুল ইসলাম বাবলু, তরুন চক্রবর্তী বিষ্ণু, সহ-সভাপতি খান মিজানুর রহমান, সাবেক সাধারন সম্পাদক ভোলানাথ রায়, কৃষ্ণ গোপাল সেন, সহ-সম্পাদক হোসাইন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ আ. রাজ্জাক শেখ, সাংগঠনিক সম্পাদক আল-মাহামুদ প্রিন্স, প্রচার ও দপ্তর সম্পাদক হামিদুল হক, নির্বাহী সদস্য তরিকুল ইসলাম, এমডি অলিদ শেখ, তৌহিদুল ইসলাম কচি, সদস্য এম এ আজিম, খান আ. জব্বার শিবলী প্রমূখ।

দিঘলিয়া প্রেস ক্লাব: সাংবাদিক মোতাহার রহমান বাবু ও সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দিঘলিয়া প্রেস ক্লাবের নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিদাতারা হলেন প্রেস ক্লাবের সভাপতি শেখ আবজাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাবিবুর রহমান তারেক, কার্যনির্বাহী সদস্য এম ফরহাদ কাদির, এস এম রফিকুল ইসলাম বাবু, ডাঃ সৈয়দ আবুল কাসেম, সৈয়দ জাহিদুজ্জামান, আলহাজ্ব মল্লিক মোকছেদুর রহমান খোকন, শামীম হক, এম এ রিয়াজ কচি, মোঃ শফিকুল ইসলাম বাবলু, মোঃ জামাল হোসেন, আরিফুল ইসলাম হাসান, প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি মোঃ আমজাদ হোসেন, মোঃ হাবিবুর রহমান মল্লিক, সহ সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম, গাজী জামসেদুল ইসলাম সৌরভ, কোষাধ্যক্ষ ওয়াছিক উল্লাহ হোসাইনী রাজিব, দপ্তর সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন, প্রচার সম্পাদক এস এম শামীম, ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ আশরাফ হোসেন, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ রাজু আহমেদ প্রমূখ।

বঙ্গবন্ধু গবেষণা ফাউন্ডেশন : খুলনা প্রেস ক্লাবের নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সময়ের খবর’র প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কাজী মোতাহার রহমান ও নিজস্ব প্রতিবেদক সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় দায়েরকৃত হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু গবেষণা ফাউন্ডেশন রূপসা উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিদাতারা হলেন সংগঠনের সভাপতি এড. মোস্তাফিজুর রহমান মোশতাক, সিনিয়র সহ-সভাপতি শের আলী হাওলাদার, সহ-সভাপতি মোঃ মনিরুজ্জামান মুছা হাওলাদার, মোঃ সুলতান মোল্যা, মোঃ মোজাফ্ফর শেখ, মোঃ বাহার আলী, সাধারণ সম্পাদক আল মাহমুদ প্রিন্স, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল হাওলাদার, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল শেখ, মোঃ মিঠুন চৌধুরী ডাবলু, মোঃ মহিদুল ইসলাম, মোঃ এনামুল শেখ, সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার ফারুক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলাম ও হাকীম আবুল বাশার, কোষাধ্যক্ষ মোঃ আক্কাস আলী ভূঁইয়া, দপ্তর সম্পাদক ডাঃ সিধু চক্রবর্তী, সহ-দপ্তর সম্পাদক ডাঃ শমূয়েল মিত্র, আইন বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল হালিম, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক প্রভাষক মোঃ অয়াহিদুজ্জামান, প্রচার সম্পাদক মোঃ রশিদ শেখ, সহ-প্রচার সম্পাদক ইস্রাফিল মোল্যা, মোঃ অলিয়ার রহমান, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ক্বারী মোঃ আবুল খায়ের, ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ মোঃ শাহজাহান সানা, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা রোকেয়া বেগম, সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা হনুফা বেগম, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মোঃ হায়দার আলী খাঁন, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আবুল হাওলাদার, সহ-ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আব্দুল বারেক, সাংস্কৃতিক বিষক সম্পাদক ইলিয়াস হোসেন বয়াতি, কার্যকরী সদস্য সাইফ খান সাগর, মনিরুজ্জামান সরদার, আলিমুল ইসলাম ফরমান, মোঃ ইয়াছিন, রুস্তম আলী মোল্যা, বিজয় কুমার দাস, মোঃ ইমদাদ শেখ, মোঃ কালাম শেখ, হানিফ তালুকদার।

খানজাহান আলী থানা প্রেস ক্লাব: সোমবার বিকাল ৫টায় খানজাহান আলী থানা প্রেস ক্লাবের উদ্যোগে সাংবাদিক মোতাহার রহমান ও সোহাগ দেওয়ানের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক ৫৭ ধারার মামালা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন খানজাহান আলী থানা প্রেস ক্লাব। ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আনসার আলীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন খানজাহান আলী থানা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শেখ আসলাম হোসেন সহ-সভাপতি আনন্দ কুমার স্বর, শেখ আঃ সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোসারফ হোসেন হাওলাদার, আইন বিষয়ক সম্পাদক সাহারা ইরানী পিয়া, অনিমেষ কুমার, সাইফুল্লাহ তারেক, মিহির রঞ্জন বিশ্বাস, মোড়ল মজিবর রহমান, রেজওয়ান আলী রাজা, এনামুল সহ সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ এই ৫৭ ধারা মামলা করে মোতাহার রহমান ও সোহাগ দেওয়ানকে হয়রানী করায় তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে অনতিবিলম্বে মামলা প্রত্যাহার সহ হুমকিদাতা তদন্ত কর্মকর্তার অপসারনের দাবী করেন।#