খুলনায় শ্বশুর বাড়িতে গৃহবধুকে হত্যা!

0
933

নিজস্ব প্রতিবেদক : খুলনায় মুক্তা পারভীন (৪৮) নামের এক গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার পরিবার।  সোমবার দুপুরে নগরীর টুটপাড়া জোড়াকল বাজার এলাকায় নিহতের শ্বশুর বাড়িতে স্বামী খোকন মোল্লাসহ পরিবারের অন্যান্যরা তাকে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ করা হয়। নিহত গৃহবধূ মুক্তা পারভীন ১৩৫, বসুপাড়া মেইন রোডের মৃত শেখ আব্দুস সাত্তারের কন্যা।
নিহতের ছোট ভাই ও সুন্দরবন কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাদিকুর রহমান রিমন বলেন, ‘সোমবার দুপুর ৩ টার দিকে আপা (মুক্তা)’র শ্বশুর বাড়ি থেকে আমাকে ফোন দিয়ে বলে তোমার বোন গুরুতর অসুস্থ তারাতারি আসো। আমি ওই বাসায় গিয়ে দেখি আপা খাটে শোয়া। তার হাত-পা ঠান্ডা। হাসপাতালে নেওয়ার কথা বললে তারা জানায়, এ্যাম্বুলেন্স খবর দিয়েছি। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পরেও এ্যাম্বুলেন্স না আসায় আমি ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, অনেক আগেই আপার মৃত্যু হয়েছে। তখন আপার ডান কান ও মুখে আঘাতের চিহ্ন দেখে আমাদের সন্দেহ হলে আমরা পুলিশকে জানাই। পুলিশ এসে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।’
তিনি আরও জানান, ‘প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর ২০১০ সালে খোকন মোল্লার সাথে আপার বিয়ে হয়। বিয়ের পর বিভিন্ন সময়ে পারিবারিক কলহ, যৌতুক দাবি, মানসিক টর্চারের অনেক খবর আমাদেরকে আপায় জানায়। আমার বাবা বসুপাড়া নিবাসী শেখ আব্দুস সাত্তারের মৃত্যুর পর আপার অংশের সম্পত্তি বিক্রি করে টাকা আনতে বলে খোকন মোল্লার পরিবার। এ বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে নানা সমস্যার দেখা যায়। ইতোমধ্যে কয়েকবার মিমাংসা করা হলেও শেষ রক্ষা হয়নি।’
তিনি অভিযোগ করেন ‘যৌতুক ও পারিবারিক কলহের কারণেই মুক্তা পারভীনকে হত্যা করা হয়েছে।’
এ বিষয়ে খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির বলেন, ‘অভিযোগ পাওয়ার পর নিহতের লাশ খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। রাত হয়ে যাওয়ায় সুরতহাল রিপোর্ট করা হয়নি। মঙ্গলবার সুরতহাল রিপোর্টের পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’