খুলনায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে সন্ত্রাসী রাজুসহ দুইজন নিহত : অস্ত্র, গুলি ও মাদক উদ্ধার

0
555

এম জে ফরাজী, খুলনাটাইমস:
খুলনায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সন্ত্রাসী রাজু শেখ ওরফে ভাগ্নে রাজুসহ দুইজন নিহত হয়েছে। গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে মহানগরীর বাগমারা ব্যাংকার্স লেন এলাকায় ব্যাংকার্স মাঠে এ ঘটনাটি ঘটে। বন্দুকযুদ্ধে নিহত দু’জন হলো নগরীর বাগমারা এলাকার মো. বাবুলের ছেলে রাজু ও মিস্ত্রিপাড়া খালপাড় এলাকার সুলতান শেখের ছেলে মানিক শেখ। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, দুই রাউন্ড গুলি, ১৫০ পিস ইয়াবা, দু’টি রামদা, দু’টি ছোরা জব্দ করা হয়। নিহত ২ জনের বিরুদ্ধে হত্যা, মাদক, চাঁদাবাজিসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকার ডেমরা থানাধীন কামারপাড়া এলাকা থেকে রাজু ও মানিক শেখকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আটক করে খুলনায় আনা হয়। আসামীদ্বয়ের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী এসআই মোঃ রফিকুল ইসলাম সংগীয় অফিসার ও ফোর্সসহ আসামীদ্বয়কে নিয়ে তাদের দেওয়া তথ্যমতে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের লক্ষ্যে রওনা হয়ে রাত পৌনে ৩টায় খুলনা থানাধীন ১০৭ বাগমারা মেইন রোড কাঞ্চন শিকদারের ইট বালু ও সিমেন্ট বিক্রয় প্রতিষ্ঠানের কাছাকাছি পৌঁছালে গ্রেফতারকৃত আসামী রাজু ও মানিক এর সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আসামীদ্বয়কে ছিনিয়ে নেওয়ার জন্য পুলিশকে লক্ষ্য করে অতর্কিতভাবে এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ করতে থাকে। এসময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশ গুলি করে। এক পর্যায়ে আসামী রাজু শেখ ও মানিক শেখ পুলিশ হেফাজত থেকে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে গোলাগুলির মধ্যে পড়ে তার সহযোগী সন্ত্রাসীদের গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় আসামীদ্বয়কে চিকিৎসার জন্য খুলনা থানার ডিউটিতে নিয়োজিত অফিসার ও ফোর্সের মাধ্যমে দ্রæত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। পরবর্তীতে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আসামীদের মৃত ঘোষণা করেন।
তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে উপস্থিত সাক্ষীদের উপস্থিতিতে সন্ত্রাসীদের ফেলে যাওয়া ১টি পাইপগান, ২টি কার্তুজ, ২টি রামদা, ২টি ছোরা ও ১৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
ওসি আরও জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত রাজু শেখ ওরফে ভাগ্নে রাজুর নেতৃত্বে গত ১৮ জুন বাগমারা মেইন রোডের চা বিক্রেতা আব্দুল মান্নান এর বড় ছেলে হাফেজ ওবায়দুলকে কুপিয়ে জখম করে সন্ত্রাসীরা। জখমের ৫ দিন পর ওবায়দুল ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। উক্ত ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার প্রধান আসামী ভাগ্নে রাজু বলে জানান তিনি।