খুলনায় ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের পরও কর্মবিরতি অব্যাহত : পাট শ্রমিক পরিবারে হাহাকার

0
432

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনাটাইমস:
খুলনাসহ সারাদেশে রাষ্ট্রায়ত্ত¡ পাটকলে বকেয়া মজুরীসহ ১১ দফা দাবিতে দ্বিতীয়বারে ডাকা কর্মসূচির তৃতীয় দিনে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ ও ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষেও কর্মবিরতি অব্যাহত রাখার সিদ্বান্ত শ্রমিক নেতাদের।
খুলনাঞ্চলের আট পাটকলে কর্মবিরতির ১৬ তম দিনে দিতীয় দফায় ডাকা কর্মসূচীর ৩য়দিনে সোমবার বিকেল ৩টায় খুলনা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেন বাংলাদেশ পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। এসময় বিজেএমসি খুলনা অঞ্চল, জেলা প্রশাসক, প্রকল্পপ্রধান ও সংসদ সদস্য বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সাথে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল ৪টায় শুরু হওয়া বৈঠক চলে রাত সোয়া ৮টা পর্যন্ত।
খুলনা জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান, জেলা যুগ্ম-শ্রম অধিদপ্তর প্রধান মিজানুর রহমান, বিজেএমসি খুলনা জোনের প্রধান গাজী সাহাদাত হোসেন, ক্রিসেন্ট জুটমিলের প্রকল্প প্রধান আবুল কালাম হাজারীসহ প্লাটিনাম, স্টার, দৌলতপুর, খালিশপুর, আলীম, ইস্টার্ন জুটমিলের প্রকল্প প্রধানরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।
শ্রমিক নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ পরিষদের কেন্দ্রীয় আহবায়ক খুলনা প্লাটিনাম জুট মিল এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নের সভাপতি সরদার মোতাহার উদ্দিন, পরিষদের কার্যকরী আহবায়ক ক্রিসেন্ট জুট মিলস শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহরাব হোসেন, জেজেআই মিলের সাধারণস সম্পাদক হারুন অর রশিদ মল্লিক, ইর্ষ্টান জুট মিলের সাধারণ সম্পাদক এস,এম জাকির হোসেন, স্টার মিলের সভাপতি বেল্লাল মল্লিক, ইর্ষ্টান মিলের সভাপতি মোঃ আলাউদ্দিন, আলীম জুট মিল মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি সাইফুল ইসলাম লিটু, জেজেআই মিলের সিবিএ নেতা মোঃ হাসান উল্যা, ক্রিসেন্ট মিলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ পান্নু মিয়া, খালিশপুর জুট মিলের সভাপতি চৌধুরী মিজানুর রহমান মানিক, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, দৌলতপুর জুট মিলে এ্যাডহক কমিটির সভাপতি মোঃ হেমায়েত উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আক্তার হোসেন, শ্রমিক নেতা মোঃ দ্বীন ইসলাম, মোঃ আবু জাফর, কাওসার আলী মৃধা, খলিলুর রহমান, হুমায়ন কবির, গাজী মাসুম, সরদার আলী আহমেদ, আঃ সালাম, আঃ রশিদ, আবু হানিফ, মোঃ নুরুল হক, হুমায়ন কবির খান, ইজদান আলী খান, মোঃ হানিফসহ সিবিএ-নন সিবিএ নেতৃবৃন্দ।
দীর্ঘ বৈঠকে শ্রমিকনেতাদের স্ব স্ব মিলের হিসাবে এক বা দু’সপ্তাহের যে অর্থ আছে সেটি নিয়ে মিলের কাজে যোগ দোয়ার আহŸান জানান। এ প্রস্তাবে শ্রমিকরা রাজি না হওয়ায় কর্মবিরতি ও ঘোষিত কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে বলে শ্রমিক আন্দোলনের অন্যতম নেতা সোহরাব হোসেন জানান। তবে তিনি আরো জানান শ্রমিকদের গেট মিটিংয়ে প্রস্তাবের কথা জানলে তারা রাজি হলে মিল চালান যেতে পারে। তাই আজ গেট মিটিংয়ের সিদ্ধানের উপর নির্ভর করছে উৎপাদন বন্ধ থাকবে না চলবে। তবে এ মূহুর্তে শ্রমিক পরিবারে চলছে চরম হাহাকার।
#