খুলনায় কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

0
442

খুলনা টাইমস প্রতিবেদক:
সরকারি চাকরিতে কোটাব্যবস্থা সংস্কারের দাবি এবং কৃষিমন্ত্রীর বক্তব্যের ও ছাত্রদের বিরুদ্ধে নিপীড়নের প্রতিবাদে খুলনায় ক্লাস বর্জন করে সড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুর থেকে নগরীর শিববাড়ি মোড়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট), সরকারি বিএল কলেজসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়-কলেজের শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে। এর আগে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের হাদি চত্বরে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
বেলা ১১টার দিকে কয়েক হাজার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হাতে প্লাকার্ড নিয়ে নগরের গল্লামারী হয়ে ময়লাপোতা মোড়ে এসে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। তাঁদের হাতে জাতীয় পতাকা, ঢোল, গিটারসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র ছিল। এ সময় পুরো খুলনা শহরের যান চলাচল কার্যত অচল হয়ে যায়। পরে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।
এরপর শিক্ষার্থীরা নগরের শিববাড়ী মোড়ে অবস্থান নিয়েছেন। সেখানে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও যোগ দিয়েছেন। এসব শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সরকারি চাকরিপ্রত্যাশী বেকার তরুণ-তরুণীরা যোগ দেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সরকারি চাকরি প্রত্যাশী বেকার তরুণ-তরুণীরা যোগ দিয়েছেন। কোটা পদ্ধতির সংস্কারসহ পাঁচ দফা দাবিতে গত ১৭ ফেব্র“য়ারি থেকে দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ ও জেলা পর্যায়ে আন্দোলন কর্মসূচি পালন করছেন চাকরি প্রত্যাশীরা।
শিক্ষার্থীদের ব্যানারে লেখা আছে কোটা সংস্কারের দাবি কি অযৌক্তিক? কোটার হোক সংস্কার, মেধার হোক মূল্যায়ন,’ কোটা মানে ভিক্ষা, মুক্তি পাক শিক্ষা’, ’সোনার বাংলায় কোটা প্রথার ঠাঁই নাই’, ‘অহিংস আন্দোলনে সহিংসতা কেন’।

এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি ও স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ। বুধবার পৃথক বিবৃতিতে তারা বলেন, শিক্ষার্থীরা চাকুরীক্ষেত্রে কোটাপ্রথা সংস্কারের যে প্রস্তাবসমূহ উপস্থাপন করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি তার সাথে সহমত প্রকাশ করছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি মনে করে চাকুরী ক্ষেত্রে কোটা প্রথার সংস্কার এখন যুগের চাহিদা, অবিলম্বে এই পদ্ধতি সমন্বিত ও যুক্তিযুক্ত করা উচিৎ। বিবৃতিদাতারা হলেন সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন ও সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. আবু শামীম মোহাম্মদ আরিফ, স্বাশিপের সভাপতি প্রফেসর ড. অনির্বাণ মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক মোহাঃ সাদিকুল আমিন। এর আগে আন্দোলনের যৌক্তিকতা তুলে ধরে সংহতি প্রকাশ করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ফায়েক উজ্জ জামান।