খুলনায় এইচএসসি’র প্রশ্নফাঁস চক্রের এক সদস্য গ্রেফতার

0
379

নিজস্ব প্রতিবেদক: খুলনায় এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। গ্রেফতারকৃত যুবক মোঃ আবুল আলা ওয়ালিদ (২১) নগরীর সোনাডাঙ্গা থানাধীন ডালমিল মক্কী মসজিদ এলাকার মোঃ ইসমাইল মুন্নার ছেলে। গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
র‌্যাব সূত্র জানায়, গত ২ এপ্রিল সারা বাংলাদেশে একযোগে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর থেকেই একটি চক্র উক্ত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করে টাকার বিনিময়ে দেশের অন্যতম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের সাহায্যে দেশের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দিয়ে দেশের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করাসহ শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করার কাজে লিপ্ত রয়েছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৬ এর গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করা হয়। প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রটিকে গ্রেফতারের লক্ষ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, মোঃ এনায়েত হোসেন মান্নান, কমান্ডার, সিপিসি স্পেশাল এর নেতৃত্বে একটি দল খুলনা মহানগরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে সোনাডাঙ্গা থানাধীন কেডিএ এ্যাপ্রোচ রোড থেকে প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের ওই সদস্যকে গ্রেফতার করে।
আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, সে Facebook ID SP Ornob, Daniel Brown, Exam Helper এবং গ্রæপ পেইজ Question Out Team এর মাধ্যমে HSC পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আগাম সংগ্রহ করে। সে PSC/JSC/SSC/HSC All Board Question ১০০% Common এই Groop যার সদস্য সংখ্যা প্রায় ৪০,০০০ (চল্লিশ হাজার) লোক; সেখানে ধৃত আসামী Post দেয় যে, ঐঝঈ পরীক্ষার আগাম প্রশ্নপত্র দেওয়া হচ্ছে। পরীক্ষার্থীদের মধ্যে Facebook, Massenger, Imo ইত্যাদি মাধ্যমে সে বিভিন্ন প্রশ্নপত্র বিক্রয় করে। প্রতিটি প্রশ্ন সে ৩০০/- টাকা থেকে ৫০০/- টাকার বিনিময়ে পরীক্ষার্থীদের নিকট বিক্রয় করে। Facebook এ সে বিকাশ নম্বর দেয় এবং যারা প্রশ্ন ক্রয় করে উক্ত বিকাশের মাধ্যমে তারা টাকা পরিশোধ করে বলে জানায়।
সে আরো জানায়, Web Page HSC-২০১৮ এ লাইক দিলে পরীক্ষার আগের রাতে প্রশ্ন পেতো। তবে, তার দেওয়া প্রশ্নপত্রের ভিতরে SSC পরীক্ষার অনেক বিষয়ের প্রশ্ন মিললেও HSC পরীক্ষায় তার দেওয়া কোন প্রশ্নই বোর্ডের প্রশ্নপত্রের সাথে মিলেনি বলে জানায়।
উল্লেখ্য যে, সে SSC পরীক্ষার সময়ও বিভিন্ন বিষয়ের ফাঁসকৃত প্রশ্নপত্র আগাম বিক্রয় করেছে বলে স্বীকার করে এবং উহার সফ্ট কপিও তার মোবাইল ফোনে সংরক্ষিত পাওয়া যায়। সর্বশেষ সে আইসিটি পরীক্ষার প্রশ্ন অনেক পরীক্ষার্থীর নিকট বিক্রয় করেছে বলে জানায়। HSC পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর থেকে সে MCQ নামে Massenger এ একটি গ্রæপ তৈরী করে গ্রæপ মেম্বারসহ টাকার বিনিময়ে প্রশ্নপত্র সরবরাহ করে। আসামীর বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬ (সংশোধনী-২০১৩) এর ৫৭(২)/৬৬(২) ধারায় মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।