খুলনায় আর্সেনিকে আক্রান্ত এলাকার পরিধি বেড়েছে

0
664

কাজী মোতাহার রহমান: খুলনায় কালাজ্বর, ডায়রিয়া ও এইডস রোগীর পাশাপাশি আর্সেনিকে আক্রান্ত এলাকার পরিধিও বেড়েছে। জেলার ৯ উপজেলায় নলকূপের পানিতে আর্সেনিক পাওয়া গেছে। ৪৬টি ইউনিয়নে ৫৯২ জন এ রোগে আক্রান্ত বলে সনাক্ত করা হয়। ২০১৪ সালে ৪২ ইউনিয়নে আর্সেনিকে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৬০৫ জন। গত এক যুগ সময়ে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে শুধুমাত্র দিঘলিয়া উপজেলায় ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সাথে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অপরিকল্পিতভাবে পানি উত্তোলনের ফলশ্র“তিতে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে, সে স্থানটি দখল করছে বাতাস। ভূ-গর্ভস্থ শিলাস্তর-এ বাতাসের সংস্পর্শে এসে জারণ-বিজারণ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আর্সেনিক পানিতে দ্রবীভূত হয়ে যাচ্ছে।
আর্সেনিক মিটিকেশন ওয়াটার সাপ্লাই প্রজেক্টের সূত্র জানায়, জেলার ৫৯ হাজার ৮২১টি অগভীর নলকূপের পানি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। তার মধ্যে ২৫ হাজার ৬৯৩টি নলকূপের পানিতে আর্সেনিকের সন্ধান পাওয়া যায়।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সূত্র জানায়, আর্সেনিক কবলিত ইউনিয়নগুলো হচ্ছে কয়রা উপজেলার আমাদি, মহারাজপুর, মহেশ্বরীপুর, পাইকগাছা উপজেলার চাঁদখালি, রাউলী, গদাইপুর, লস্কর, সোলাদানা, লতা, কপিলমুনি, হরিঢালি, ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরখালি, গুটুদিয়া, রংপুর, শোভনা, মাগুরঘোনা, খর্ণিয়া, রুদাঘরা, ধামালিয়া, ফুলতলা উপজেলার দামোদর, আটরা গিলাতলা, দিঘলিয়া উপজেলার আড়ংঘাটা, গাজীরহাট, সেনহাটি, দিঘলিয়া, বারাকপুর, যোগীপোল, তেরখাদা উপজেলার মধুপুর, তেরখাদা, সাচিয়াদহ, ছাগলাদহ, বারাসাত, আজগড়া, রূপসা উপজেলার ঘাটভোগ, টিএস বাহিরদিয়া, নৈহাটি, শ্রীফলতলা, আইচগাতি, বটিয়াঘাটা উপজেলার ভান্ডারকোট, বটিয়াঘাটা, দাকোপ উপজেলার তিলডাঙ্গা, কামারখোলা, সুতারখালি, কৈলাশগঞ্জ, দাকোপ ও চালনা।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সিনিয়র কেমিস্ট জানান, খুলনা অঞ্চলের অগভীর নলকূপে আর্সেনিকের পরিমাণ বেশি। ডুমুরিয়া, পাইকগাছা ও রূপসায় ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে।
ডুমুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রূপসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তারা জানান, রোগীদের হাতে প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স ও আয়রন ট্যাবলেট দিয়ে রোগীদের বিদায় দিতে হচ্ছে। তেরখাদা উপজেলার বারাসাত ইউনিয়ন পরিবার কল্যাণ সহকারী নমিতা রাণী বাইন জানান, হাড়িখালি গ্রামের মোঃ আব্দুল আজিজ মোল্লা, নয়ন ও কাগদি গ্রামের শান্তকে আর্সেনিক রোগী হিসেবে সনাক্ত করা হয়েছে। দিঘলিয়া উপজেলার ফরমাইশখানা গ্রামের আজগার আলী শেখের কন্যা স্বামী পরিত্যক্তা পারভীন খাতুন জানান, ১০ বছর তিনি এ রোগে আক্রান্ত, স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে প্রয়োজনীয় ওষুধ পান না। একই অভিযোগ এ গ্রামের মৃত আফতাব মোল্লার পুত্র আবুল মোল্লার।