খালেদার জিয়ার জামিন স্থগিত

0
348

অনলাইন ডেস্ক : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার জামিনের বিরদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) আপিলের অনুমতি দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আগামী ৮ মে এ আপিলের শুনানির জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে। একইসঙ্গে হাইকোর্টের দেয়া জামিনের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

সোমবার সকালে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের লিভ টু আপিল মঞ্জুর করে এ আদেশ দেন।

এর আগে রোববার এ আপিলের ওপর শুনানি হয়। আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আদেশের জন্য সোমবার দিন ধার্য করেন আদালত। আদেশের পরে সাংবাদিকদের খালেদার জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, এ ধরনের আদেশ আগে কখনো দেখিনি।

নজীরবিহীন উল্লেখ করে আরেক আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, এটাকে নজিরবিহীন বলতে বাধ্য হচ্ছি। এটা অনিভপ্রেত। আমরা মর্মাহত।

গত ১২ মার্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের দেওয়া চার মাসের জামিন স্থগিত চেয়ে পর দিন ১৩ মার্চ আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক।

পরে আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আদালত এ দুই আবেদনের শুনানির জন্য ১৪ মার্চ দিন ধার্য করেন। এরপর ১৪ মার্চ আপিল বিভাগ রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদককে জামিনের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে) দায়ের করতে বলে চার মাসের জামিন ১৮ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করেন। এ আদেশ অনুসারে পরের দিন ১৫ মার্চ রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক লিভ টু আপিল দায়ের করেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান ছাড়া অন্য আসামিরা হলেন—মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য কাজী সালিমুল হক কামাল, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী,সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ।

প্রসঙ্গত, দুদকের উপপরিচালক হারুন-আর রশিদ ২০১০ সালের ৫ আগস্ট খালেদা জিয়া ও তাঁর ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরপর ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায় ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ খালেদা জিয়াসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।