খালিশপুরে দেহ ও মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেটে নষ্ট হচ্ছে যুবসমাজ

0
618

নিজস্ব প্রতিবেদক:
খালিশপুরে একটি পরিবারের ছত্র ছায়ায় দেহ ও মাদক ব্যবসার সিন্ডিকেটের কারনে এলাকার সামাজিক অবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। নষ্ট হচ্ছে এলাকার যুবসমাজ। অতিষ্ঠ এলাকাবাসী প্রতিকারের জন্য থানা পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছে।
নগরীর খালিশপুর আবাসিক এলাকায় দির্ঘদিন ধরে উঠতি বয়সী তরুনীদের দিয়ে দেহ ব্যবসা ও মদক ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এলাকা বাসীর এক গন স্বাক্ষরিত অভিযোগ পত্রের মাধ্যমে জানা যায়, জান্নাতুন নাঈম ওরফে সিনথিয়া নামে এক তরুনী দীর্ঘদিন ধরে হাউজিং এস্টেট সি/৪১ এর নিজেদের বাস ভবনে দেহ ও মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে। জান্নাতুন নাঈম বন্ধু ও বান্ধবী পরিচয়ে খদ্দেরদের বাড়িতে এনে নির্বিঘেœ রমরমা দেহব্যবসা ও মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার বাড়িটি রিতিমত একটি দেহ ও মাদক ব্যবসার রমরমা কেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। যার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক তার পিতা এবিএম শেরজামান ও মাতা হোসনেয়ারা জামান। তার বোন ও তাকে ব্যাপক ভাবে সহযোগীতা করে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। বর্তমান সিনথিয়া চট্রগ্রামে অবস্থান করলেও তার গ্রæপের অন্যান্য সদস্যরা চাঙ্গা রেখেছে এ দেহ ও মাদক ব্যবসার স্পটটি। এখানেই থেমে নেই তার ব্যবসা। এর পরিধি বাড়িয়ে বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে, ছাত্রাবাসে দেদারছে ব্যবসা চালিয়ে ব্যাপক অর্থ উপার্যন করছে তারা। বাহিরে তাদের ঠাটবাট দেখে প্রথমে কেউ তাদের এত নোংরা কর্মকান্ড সম্পর্কে বুঝতেই পারবেনা। যে কারনে দীর্ঘদিন ধরে চলছে তাদের ব্যবসা। ফলে এলাকার যুব সমাজ তাদের খপ্পরে পড়ে শেষ হতে বসেছে। তাদের এ অপকর্মের বিষয় এলাকা বাসী জানার পর তারা বিভিন্ন ভাবে প্রতিবাদ করে আসছে। এ বিষয়টি নিয়ে তাদের নিকট প্রতিবেশী, মসজিদের মুসুল্লি, কমিটির সদস্য, তাবলিগের মুরুব্বি,এমনকি কলেজের শিক্ষকরাও এ ব্যবসা বন্ধের দাবী জানলেও শেরজামান সেটি কর্নপাত করেননি। এমন কি সিনথিয়াকে একবার এলাকার মুরুব্বীরা এ অবৈধ দেহ ও মাদক ব্যবসা বন্ধের জন্য তাকে চড়থাপ্পড়ও মেরে কোন ফল হয়নি। তাদের এ অপকর্মের বিষয়ে জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশের পরও থেমে নেই এ অপ্রতিরোধ্য পরিবার। এ ব্যবসার অর্জিত অবৈধ অর্থ দিয়ে সব বিপদ কাটিয়ে দিয়ে, দাপটের সাথে নির্বিঘেœ চালিয়ে যাচ্ছে এ ব্যবসা। শেরজামানের এ বাড়িটি এখন খালিশপুর এলাকার দেহ ও মাদক ব্যবসার প্রানকেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। শেরজামান মুল গডফাদার হিসেবে সিন্ডিকেটটি পরিচালনা করছেন বলেও অভিযোগে উল্লেখ করেছে এলাকাবাসী। তারা এর স্থায়ী প্রতিকারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য খালিশপুর থানায় একটি আবেদন করেছেন।
এবিষয়ে খালিপুর থানার ওসি মোঃ মোশারফ হোসেন জানান, অভিযোগ পত্র পেয়েছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সিনথিয়া ও তার পিতা-মাতা আটক হবে, শাস্তি পাবে এ অবরাধীরা, বন্ধ হবে অসামাজিক কর্যকলাপ ও মাদক ব্যবসা, রক্ষা পাবে যুবসমাজ এমনটাই দাবী এলাকবাসীর।