খানাখন্দে ভরা সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনাল, সংস্কারে উদ্যোগ নেই

0
787

এম সাইফুল ইসলাম, খুলনা টাইমস প্রতিবেদক:

নগরীর সোনাডাঙ্গা বাস টার্মিনাল খানখন্দে ভরা থাকায় জন ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করছে। সামান্য বৃষ্টিতেই খানাখন্দ পানিতে একাকার হয়ে যায়।
সরেজমিন দেখা গেছে, বাস টার্মিনালের খানাখন্দে সামান্য বৃষ্টিতে জমছে কাদা পানি। পানি সরানোর জন্য নেই ব্যবস্থা। কাদা পানিতে দেবে যাচ্ছে বাস। ফলে বাসের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি অকেজো হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
জানা যায়, ১৯৮২-৮৩ সালে ১ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরীর সোনাডাঙ্গায় আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল নির্মাণে একটি প্রকল্প গ্রহণ করে খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কেডিএ)। প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ শেষ হয় ১৯৮৫ সালে। পরবর্তীতে ১৯৯৬-৯৭ সালে আরও ১ কোটি ৯৮ লাখ টাকা ব্যয়ে টার্মিনালটির মৌলিক সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হয়। প্রকল্পের মধ্যে থাকে টার্মিনাল ভবন, টিকিট কাউন্টার, রেস্ট হাউজ, ড্রেন, ক্যান্টিন, যন্ত্রপাতি বিক্রয় স্থান নির্মাণ ও গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থা। সংশ্লিষ্ট অধিদফতর কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় কয়েক মাস আগে খুলনা-২ আসনের সাংসদ সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে সংস্কার করার প্রতিশ্রুতি দেন। পরিদর্শনের কিছুদিন পরই কেডিএ টার্মিনাল সংস্কারের উদ্যোগ নেয়। কিছুদিন যেতেই সংস্কারের শুরুতেই কাজ বন্ধ হয়ে গেলে সাংসদকে ফের জানানো হয়।
খুলনা-বাগেরহাট রুটের বাস কন্ডাক্টর মোঃ কুদ্দুস জানান, আমরা প্রতিনিয়ত বাস প্রতি কেডিএকে টাকা দিই। তারপরও কেন এটি সংস্কার করতে চায় না কেডিএ? বর্তমানে আমরা সড়কের চেয়ে টার্মিনালের মধ্যে বেশি ঝুঁকিতে থাকি।
খুলনা জেলা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আনোয়ার হোসেন সোনা বলেন, একাধিকবার কেডিএকে জানানোর পরও কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। তারা শুধু আশ্বাস দেয়। প্রতিদিন গড়ে প্রায় হাজার খানেক গাড়ি বের হয়। গাড়ি প্রতি ২৫-৪০ টাকা দিতে হয় কেডিএ কে। কিন্তু সে হিসেবে সেবার মান অনেক খারাপ।
নিরাপদ সড়ক চাই এর খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন বিপ্লব বলেন, সোনাডাংগা বাস টার্মিনালটি কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় আজ বেহাল দশায় পতিত হয়েছে। চালকরা সড়কের চেয়ে এখানে বেশি আতঙ্কে থাকে