কোস্টগার্ড বহরে যুক্ত হলো দু’টি আধুনিক যুদ্ধজাহাজ

0
943

এম জে ফরাজী, মংলা থেকে ফিরে:
বাংলাদেশ কোস্টগার্ড বাহিনীর বহরে যুক্ত হলো দু’টি আধুনিক যুদ্ধজাহাজ। শুক্রবার দুপুরে কোস্টগার্ড পশ্চিমজোন (মোংলা সদর দফতর) এর জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আলী ও কোস্টগার্ডের পরিচালক (অপারেশন) ক্যাপ্টেন ইকরাম হোসেন আনুষ্ঠানিকভাবে সিজিএস মনসুর আলী এবং সিজিএস কামরুজ্জামান নামে এ দুটি আধুনিক যুদ্ধজাহাজ গ্রহণ করেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ক্যাপ্টেন মিনারুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন মামুনুর রশীদ, কমান্ডার মোস্তফা কামাল, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মারুফ, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার হায়াত ইবনে সিদ্দিক, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আলিম, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার তারিক হায়দার, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মেহেদী হাসান, লেফটেন্যান্ট সেলিম বিশ্বাস, লেফটেন্যান্ট তহসিন আহমেদ, লেফটেন্যান্ট (সার্জন) হাসিফ কায়সার, সাব-লেফটেন্যান্ট আতাহার আলী প্রমুখ।
৮৭ মিটার দৈর্ঘ্য ১০ দশমিক ৫ মিটার প্রস্থ এবং এক হাজার ৩০০ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন জাহাজ দু’টি ঘণ্টায় ২৩ নটিক্যাল মাইল বেগে চলতে পারবে বলে জানায় জাহাজ দু’টির অধিনায়ক ক্যাপ্টেন এম এহসান উল্লাহ ও ক্যাপ্টেন মাসুদুল করিম সিদ্দিকি। তারা আরও জানান, জাহাজ দু’টিতে ২০ জন কর্মকর্তা ও ১৪০ জন নাবিক রয়েছেন।
কোস্টগার্ড পশ্চিমজোনের জোনাল কমান্ডার ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আলী জানান, যুদ্ধ জাহাজ দু’টি স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি গভীর সমুদ্রে টহল পরিচালনাসহ চোরাচালান প্রতিরোধে ভূমিকা রাখবে। গত ১৭ নভেম্বর বাংলাদেশের উদ্দেশে ইতালির লা স্পেজিয়া পোর্ট থেকে ছেড়ে আসে জাহাজ দু’টি। বাংলাদেশে আসার পথে গত ২১ নভে¤¦র মিশরের পোর্ট সেইড এ পৌঁছে প্রায় ২ দিন অবস্থান করে এবং ২৫ নভে¤¦র কেএসএ জিআই জেদ্দা পোর্টে পৌঁছে ৩ দিন অবস্থান করে। এরপর গত ২ ডিসে¤¦র ওমানের সালালাহ পোর্টে পৌঁছে ৬ দিন অবস্থান করে। গত ০৮ ডিসে¤¦র অপরাহ্নে ভারতের মুম্বাই পোর্টের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে এবং ১১ ডিসে¤¦র পৌঁছায়। সেখানে ২ দিন অবস্থান করার পর ১৩ ডিসে¤¦র শ্রীলঙ্কার কলম্বো পোর্ট এর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে এবং সেখানে ২ দিন অবস্থানের পর ১৮ ডিসে¤¦র জাহাজ দুটি বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। গতকাল শুক্রবার কোস্টগার্ডে যুক্ত হলো জাহাজ দু’টি।
কোস্টগার্ড সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী পরিকল্পনা ও রূপকল্প ২০৩০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ বহরে যুক্ত হলো আরও দুইটি আধুনিক সমুদ্রগামী যুদ্ধ জাহাজ সিজিএস মনসুর আলী ও সিজিএস কামরুজ্জামান। বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের স্বাভাবিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি জাহাজ দুটি গভীর সমুদ্রে টহল পরিচালনা, পরিবেশ দূষণ, কার্যকলাপ অনুসন্ধান ও তার প্রতিরোধ, মানব পাচার প্রতিরোধ, অন্য জাহাজকে অগ্নি নির্বাপণী সহায়তা প্রদান, উদ্ধার অভিযানসহ নানাবিধ উপকূলবর্তী ও সামুদ্রিক দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা মোকাবেলায় সক্ষম। জাহাজ দুটিতে বিদ্যমান ইতালিয়ান নৌবাহিনীর অস্ত্র ও সরঞ্জামাদির পাশাপাশি আধুনিক ও উপযোগী বিভিন্ন রকম অস্ত্র ও সরঞ্জামাদি সংযোগ করা হয়েছে।
বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনী ডাকাত, বনদস্যু দমন ছাড়াও মানব এবং মাদক পাচার ঠেকানোর ক্ষেত্রে ব্যাপক সাফল্য দেখিয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বাহিনীর অপারেশানাল কর্মকান্ড অনেক বেশী বেগবান হয়েছে এবং ২০১৭ সালে বিপুল পরিমানে বিভিন্ন প্রকার অবৈধ মালামাল আটক করেছে। নতুন জাহাজ দুটি আসায় এই ধারাবাহিকতায় কোস্ট গার্ডের অপারেশনাল কার্যক্রম আরো বৃদ্ধি পাবে বলে আশা প্রকাশ করেন কোস্টগার্ডের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।