কেসিসি নির্বাচন আ’লীগের চ্যালেঞ্জ, বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে : ছাত্রলীগকে বেগম সুফিয়ান এমপি

0
668

বিজ্ঞপ্তি: কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেত্রী ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি বলেছেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঐতিহ্যবাহি সংগঠন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এই সংগঠনের নেতারাই ৭০-এর নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন এবং মহান স্বাধীনতা অর্জনসহ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে বিজয় অর্জিত হয়েছিলো। আজ জাতির সামনে তেমনি একটি সময় এসেছে। যখন স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি মাথাচাড়া দেয়ার মিথ্যে আস্ফালন করছে। সেজন্যে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধতাই সকল অপশক্তিকে ম্লান করে দিতে পারে।

 

 

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকার গঠনে অনেক ভূমিকা রাখে। এই নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী বিজয়ী হলে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পদ্মার এপারের তার ইতিবাচক প্রভাব আসবে আওয়ামী লীগের ঘরে। সেজন্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করেছে। ছাত্রলীগ এই চ্যালেঞ্জকে গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে বিজয় ছিনিয়ে আনবে।

 

শুক্রবার বিকাল ৩টায় খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি ও কেন্দ্রিয় নেতা শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এস এম আসাদুজ্জামান রাসেলের পরিচালনায় কর্মসভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য এস এম কামাল হোসেন। এসময়ে তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রতিটি ওয়ার্ড ও কেন্দ্রে আওয়মী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে নিয়ে কমিটি গঠন করতে হবে।

 

 

এসময়ে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক, বিসিবি’র পরিচালক শেখ সোহেল, মহানগর আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, সদর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম।

 

 

এসময়ে অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান দুলাল, শফিকুর রহমান পলাশ, এস এম হাফিজুর রহমান হাফিজ, কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা মশিউর রহমান সুমন, মুজিবুর রহমান মুজিব, মেহেদি হাসান রাসেন, মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সোহেল বিশ্বাস, আসাদুজ্জামান বাবু, মাসুদ হোসেন সোহান, রনবীর বাড়ই সজল, মাহামুদুল হাসান শাওন, জব্বার আলী হিরা, মিনহাজ সুজন, ফয়সাল আহমেদ অপু, শৈলেন বৈরাগী, কামরুজ্জামান ইমরান, আলীমুল জিয়া, সোহান হোসেন শাওন, মাহামুর রহমান রাজেশ, আসাদুজ্জামান সানি, দিবাকর সাহা, জহির আব্বাস, এস এম রাজু হোসেন, আহনাফ অর্পন,

 

 

জোয়েব সিদ্দিকী, বশিয়ার রহমান বাদশা, এস এম সাইদুজ্জান, মো. হেলাল হোসেন, যুবী ওয়াল টুই, সানজিদা আক্তার সোনিয়া, মেহেদি হাসান সুজন, শেখ রাইহান হাসান, রুবায়েদ ইসলাম জুয়েল, উজ্জল আহমেদ, রেজওয়ান মোড়ল, বাইজিত সিনা, বক্তিয়ার খলজি, চয়ন বালা, জাহিদুর রহমান জাহিদ, জনি বসু, মো. রাসেদু ইসলাম, আশানুর ইসলাম, নিশাত ফেরদৌস অনি, আতিকুর রহমান সোহাগ, আফিজুর রহমান হাফিজ, তাজিদুল হক তাজ, মাসুদ আহমেদ সজল, তমাল দোবে উচ্ছাস, উৎপল কুমার ঘোষ, আবু হামজা অনি, রাজিউল ইসলাম রাজু, আবিদাল হাসান প্রমুখ।