কুল্যায় ভোগদখলীয় জমিতে ধান রোপনের সময় মারপিট!

0
246

আশাশুনি প্রতিনিধি: আশাশুনি উপজেলার কুল্যায় ক্রয়সূত্রে দখলীয় জমির মালিকদেরকে ধান রোপনের সময় আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মারপিট ও সাদা কাগজে স্বাক্ষর করে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের মাদারবাড়িয়া গ্রামে। জানাগেছে, মাদারবাড়িয়া গ্রামের আনার আলি বেগের ছেলে আঃ সালাম গুনাকরকাটি গ্রামের মরহুম হযরত শাহ আব্দুর রহিমের ছেলে খাজা মোঃ শফিক আহমদের নিকট থেকে ১৯/৯/১৭ তাং ২৭৬৩ নং দলিলে মাদারবাড়িয়া মৌজায় ৩০ শতক এবং ১৪/০১/১৯ তাং ৯১ নং দলিলে মৃত খাজা মোহাম্মদ হুজ্জাতুল্লাহের ছেলে খাজা মোহাম্মদ এজাজ আহমেদ ও মরহুম খাজা মোহাম্মদ ছেবগাতুল্লাহ’র ছেলে আদনান মোহাম্মদ রহিমের নিকট থেকে একই খতিয়ানে ৩৩ শতক জমি ক্রয় করেন। উক্ত জমি গ্রহিতার নামে ১.০০ অংশে ৩৪১ নং একটি পৃথক নতুন খতিয়ানে রেকর্ড করা হয়। চেকদাখিলাও কর্তন করা হয়েছে। উক্ত জমিতে ভোগদখলীকার থাকা অবস্থায় প্রতিপক্ষ মোহাম্মদ আলি, সোহরাব, আক্তার, উকিলসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ অতিঃ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত সাতক্ষীরায় ১৪৫ ধারা মতে মামলা করা হলে বিজ্ঞ আদালত থানা ও এসি (ল্যান্ড) আশাশুনিকে আইন শৃংখলা রক্ষা ও তদন্তের আদেশ প্রদান করেন। পুলিশ উভয় পক্ষকে শান্তি শৃংখলা রক্ষার্থে নোটিশ করেছেন। জমির মালিক জনমজুর নিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি জমিতে রোপনকৃত ধান দেখাশুনা করার সময় প্রতিপক্ষ জমিতে অনাধিকার প্রবেশ করে ১৪৫ ধারা অমান্য করে মারপিট ও কাউকে কাউকে আটক করে বাড়িতে নিয়ে যায় এবং সাদা কাগজে জোর পূর্বক স্বাক্ষর করিয়ে নেয়। জমিতে গেলে খুন জখমের হুমকী এবং পরিবারের সকলকে ভারতে তাড়িয়ে দেওয়াসহ জীবনে শেষ করে দেওয়ার হুমকী দেয়। নাজমুলসহ কয়েকজন তাদের ভয়ে পলাতক জীবন যাপন করতে বাধ্য হয়েছে। এব্যাপারে আব্দুস সালাম বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। তারা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।