এবার জ¦ালানি তেলের দাম বাড়লো ত্রিপুরায়

0
59
এবার জ¦ালানি তেলের দাম বাড়লো ত্রিপুরায়

টাইমস বিদেশ : ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার প্রভাব পড়েছে সারাবিশ্বেই। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন জিনিসপত্রের দাম বাড়তে শুরু করেছে। ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যেও অন্যান্য জিনিসের পাশাপাশি জ¦ালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে। দেশটির প্রান্তিক রাজ্য ত্রিপুরায় বেশ কিছু ক্ষেত্রে পাম অয়েলেরও দাম বেড়ে গেছে। রুশ ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে বৈদেশিক পণ্য সামগ্রীর দাম এখন আকাশচুম্বী। অনেক ক্ষেত্রে আবার এর প্রভাব না থাকলেও যুদ্ধের অজুহাত দেখিয়ে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন জিনিসের দাম। এদিক থেকে বলতে গেলে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ছোট্ট রাজ্য ত্রিপুরায় এতোদিন প্রভাব পড়েনি তেমন কিছুই। তবে গত সোমবার মধ্যরাতে ত্রিপুরা রাজ্যেও জ¦ালানির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলায় গত সোমবার মধ্যরাতের পর থেকে পেট্রোলের দাম ৮০ পয়সা বেড়ে দাঁড়ায় ৯৯.০৩ রুপিতে। একই সঙ্গে ডিজেলের দামও ৮০ পয়সা বেড়ে দাঁড়ায় ৮৬.৪১ রুপিতে। মধ্যরাতের আগ পর্যন্ত এ ক্ষেত্রে পেট্রোলের দাম ছিলো ৯৮.২৩ রুপি এবং ডিজেলের দাম ছিলো ৮৫.৬১ রুপি। গত ৮ মার্চ মধ্যরাত থেকেই এই মূল্য কার্যকর ছিলো। এর আগে গত ৭ মার্চ পেট্রোলের দাম ২৯ পয়সা বেড়ে দাঁড়ায় ৯৮.৫২ রুপি। অর্থাৎ গত ১ মার্চ থেকে ৬ মার্চ পর্যন্ত অপরিশোধিত তেলের দাম ছিলো ৯৮.২৩ রুপি। গত ২৮ ফেব্রæয়ারি গভীর রাতে ৯৮.২৭ পয়সা থেকে কমে এই দাম দাঁড়িয়েছিলো ৯৮.২৩ রুপিতে। ডিজেলের ক্ষেত্রেও পেট্রোলের মতোই গত ৭ মার্চ ৮৫.৬১ রুপি থেকে দাম বেড়ে দাঁড়ায় ৮৫.৮৮ রুপি। অর্থাৎ দাম বেড়েছে ২৭ পয়সা। এরও আগে গত ২৮ ফেব্রæয়ারি ডিজেলের দাম ছিলো ৮৫.৬৫ রুপি। ১ মার্চ থেকে ৪ পয়সা কমে তা দাঁড়ায় ৮৫.৬১ রুপিতে। অর্থাৎ মাত্র ৩ সপ্তাহের ব্যবধানে ৮০ পয়সা করে বাড়লো পেট্রোল এবং ডিজেলের ক্ষেত্রে। রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে জ¦ালানির মূল্য বৃদ্ধির কারণে এমনটা হচ্ছে বলে মনে করা হলেও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা অবশ্য তা মানছে না। তারা মনে করেন, সরকার চাইলে রাজ্যগুলোতে যে কর আরোপ করা হয়, তা কমিয়ে দেওয়া যেতো। কিন্তু তা না করে নিজেদের কোষাগার স্ফীত করার লক্ষ্যে এই করের বোঝা চাপানো হয়েছে সাধারণ মানুষের ঘাড়ে। বিশেষ করে বিরোধী শিবিরের বক্তব্য, এতোদিন দেশটির ৫ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফলাফল ঘোষণার পর সোমবার শপথ গ্রহণও শেষ হয় বিভিন্ন রাজ্যের নব নির্বাচিত প্রতিনিধিদের। এই অবস্থায় গত কয়েক দিনে ধাপে ধাপে জ¦ালানি মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে বিভিন্ন রাজ্যে। যদিও বৈশ্বিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণেই এই দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে ভোজ্য তেলের ক্ষেত্রে অবশ্য গত কিছুদিন যাবত একই জায়গায় স্থির রয়েছে দাম। রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে ভোজ্য তেলের মূল্যবৃদ্ধি না হলেও এর কিছুটা প্রভাব পড়েছে পাম অয়েল এর প্রতিটি পাউচ প্যাকেটে। এ ক্ষেত্রে মোটামুটিভাবে এক পক্ষকালের ব্যবধানে পাম অয়েল এর প্রতিটি প্যাকেটেই দাম বেড়েছে প্রায় ২৫ শতাংশ হারে। কারণ পাম অয়েলের পুরো প্রক্রিয়াকরণই হতো ইউক্রেনে। একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরে ত্রিপুরা মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তমাল পাল জানান, ইঞ্জিনসহ বেশ কিছু তেলের ক্ষেত্রে আপাতত মজুতের পরিমাণ কমে গেছে। তবে শেষ হিসেব অনুযায়ী, ইঞ্জিনের প্রতিটি প্যাকেটে পাইকারি দাম ১৮৫ রুপি। এছাড়াও রানী ১৮৩, ধারা ১৮২ এবং বেগম ১৭০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে।