এত দ্রুতই সম্পর্ক চুকেবুকে দিলেন রোনালদো!

0
313

স্পোর্টস ডেস্কঃ

রিয়াল মাদ্রিদকে বিদায় জানিয়ে তাঁর আবেগময় চিঠির কথা মনে আছে?

‘রিয়াল মাদ্রিদ আমার হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে।…আমি এ জার্সি ছেড়ে যাচ্ছি কিন্তু যেখানেই থাকি না কেন, এই ক্লাব ও সান্তিয়াগো বার্নাব্যু আমার অংশ হয়ে থাকবে’, চিঠিতে এমন সব আবেগময় কথাই লিখেছিলেন রোনালদো। কিন্তু কে জানত, জুভেন্টাসে যোগ দেওয়ার কিছুদিন পরই তিনি সব সম্পর্ক ছিন্ন করে ফেলবেন!

রোনালদো যা করেছেন, তা নিয়ে বেশ শোরগোলই পড়ে গেছে। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছাড়ার পর যে ক্লাবে খেলে তিনি আজ বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার, সেই রিয়াল মাদ্রিদকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ‘আনফলো’ করেছেন রোনালদো! ভুল পড়েননি। রোনালদো তাঁর ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে ‘আনফলো’ করেছেন রিয়ালকে। অর্থাৎ, ইনস্টাগ্রামে তিনি আর রিয়ালের অনুসারী নন।

ফুটবল পেশাদারির দুনিয়ায় ঠিকানা পাল্টানোই রীতি। রোনালদো সেই রীতি মেনেই রিয়াল ছেড়ে যোগ দিয়েছেন জুভেন্টাসে। তার আগে রিয়ালের হয়ে গড়েছেন অজস্র রেকর্ড—ক্লাবটির হয়ে সর্বোচ্চ গোল (৪৫১), লা লিগায় সর্বোচ্চ গোল (৩১১), চ্যাম্পিয়নস লিগে সর্বোচ্চ গোল (১০৫) আর চারবার চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপাও জিতেছেন রোনালদো। ‘হৃদয়ে জায়গা করে নেওয়া’ সেই ক্লাবের অনুসারী তালিকা থেকে রোনালদো কিনা নিজেকে সরিয়ে নিলেন!

এমন তো নয়, জুভেন্টাসকে অনুসরণ করলে অন্য কোনো ক্লাবকে অনুসরণ করা যাবে না। সাধারণত তারকা জুটির মধ্যে দেখা যায় এই প্রবণতা। সম্পর্ক ছিন্ন হলে তারকাদের অনেকেই প্রথম যে কাজটা করেন, সামাজিক মাধ্যম থেকে একে অন্যকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন। রোনালদো এত দ্রুত রিয়ালকে আনফলো কেন করলেন, এ নিয়ে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমে শুরু হয়েছে গুঞ্জন।

পেশাদারির পরাকাষ্ঠা দেখিয়ে রোনালদো এখন জুভেন্টাসের অনুসারী। ইনস্টাগ্রামে তিনি এখন ইতালিয়ান ক্লাবটির ‘ফলোয়ার’। তবে রিয়ালের সাবেক সতীর্থদের ‘আনফলো’ করেননি পর্তুগিজ তারকা। এ ছাড়াও সাবেক দুই কোচ কার্লো আনচেলত্তি আর জিনেদিন জিদানকেও তিনি অনুসরণ করছেন ইনস্টাগ্রামে। রিয়ালে তাঁর শেষটা কি তবে মনমতো হয়নি? তবে কি রিয়ালের কর্তাব্যক্তিদের ওপর রোনালদো আসলেই নাখোশ? যে গুঞ্জন শোনা গেছে এত দিন!