এই বিশ্বকাপটা আমার হবেই হবে: নেইমার

0
335

স্পোর্টস ডেস্ক:

৫৬ বছর পর ঘরের মাঠে বসেছিল বিশ্বকাপ। স্বপ্নের শিরোপা জয়ে শুরুটাও দুর্দান্ত করেছিল ব্রাজিল। কিন্তু হটাৎ ঝড়ে তাসের ঘরের মতো যেন সবকিছু তছনছ হয়ে যায়। স্বপ্নভঙ্গের বেদনা নিয়ে সেদিন বেলো হরিজন্তের গ্যালারি চোখের জলে ভিজিয়েছিল ব্রাজিলিয়ানরা। কিন্তু ২০১৪ সালে জার্মানির বিপক্ষে সেমিফাইনালে ৭-১ গোলের পরাজয় যেন শক্তি হয়ে এবার ফিরে এসেছে ব্রাজিল শিবিরে।

অনেকেই মনে করেন, ওই বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার বিপক্ষে নেইমারের চোট গোটা ব্রাজিলকে ‘হেক্সা’ জয়ের মিশন থেকে ছিটকে ফেলে। নেইমারের ইনজুরি নিয়ে শঙ্কাটা এবারও ছিল। তবে প্রায় আড়াই মাস পুনর্বাসনে থেকে সেলেসাওদের প্রাণভোমরা নেইমার এখন পুরো সুস্থ। শুরু করেছেন অনুশীলনও।

গত বিশ্বকাপে ঘরের মাঠে নেইমারকে ঘিরে ষষ্ঠ শিরোপা জয়ের যে স্বপ্ন ব্রাজিল দেখেছিল তার পূর্ণ বাস্তবায়নটা এবার রাশিয়ায় করতে মরিয়া স্বয়ং নেইমারই। না, শুধুই শিরোপায় চোখ নেইমারের। সেক্ষেত্রে রানার্স আপ তথা দ্বিতীয় হওয়াও যেন দলটির কাছে ব্যর্থতার শামিল।

ফেসবুকে এক সাক্ষাৎকারে বিশ্বকাপ জয়ে মরিয়া মনোভাব প্রকাশ করে নেইমার বলেন, ‘বিশ্বকাপে ব্রাজিলিয়ানদের কাছে শিরোপা জয়ই শেষ কথা।’

অবশ্য নিজের ওপর ব্রাজিল সমর্থকদের বাড়তি চাপটাও টের পাচ্ছেন এই ফুটবল সেনসেশন। জানিয়েছেন নিজের মধ্যে ‘ভীতি’র কথাও। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে একদম জাত খেলোয়াড়ের ভূমিকায় অবতীর্ণ নেইমার। প্রতিজ্ঞাবদ্ধ কণ্ঠেই জানালেন, ‘এই বিশ্বকাপটা আমার হতেই হবে।’

গেল বিশ্বকাপে নেইমারের কান্না দেখেছিল গোটা ফুটবল বিশ্ব। অনেকের মতেই, জার্মানির বিপক্ষে বিপর্যয়ের বড় কারণ আগের ম্যাচে নেইমারের চোট। এবার বিশ্বকাপের আগেই চোটের ঝামেলাটা শেষ করেছেন। এখন সুস্থ হয়ে উঠার পাশাপাশি বিশ্বকাপের অপেক্ষায় এই ফুটবল জাদুকর। তবে প্রশ্ন উঠছেই, চোট কাটিযে বিশ্বকাপে আপন ছন্দে ফিরতে পারবেন তো নেইমার! উত্তরটা অবশ্য সময়ই বলে দেবে।

সাক্ষাৎকারে নেইমার বলেছেন, ‘ইতোমধ্যেই বল নিয়ে অনুশীলন শুরু করেছি। বেশ ভালো লাগছে। হ্যাঁ, কিছুটা ভীতি তো থাকবেই। তবে ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছি।’

এবার যেকোনও মূল্যে বিশ্বকাপ জয়ে আপসহীন নেইমার বললেন, ‘বিশ্বকাপ এই বিশ্বের সবচেয়ে বড় চ্যাম্পিয়নশিপ। আমি এখানে খেলে চ্যাম্পিয়ন হতে চাই। রাশিয়া বিশ্বকাপটা আমার চাই। এই শিরোপাটা আমার হতেই হবে।