‘উপহার’ নিয়ে রবিবার যশোর আসছেন প্রধানমন্ত্রী

0
347

যশোর প্রতিনিধি :
প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে যশোর ছেয়ে গেছে এমন ব্যানার ফেস্টুনেএকগুচ্ছ ‘উপহার’ নিয়ে আগামীকাল রবিবার (৩১ ডিসেম্বর) যশোর আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সফরে তিনি ১৮টি উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন ও ১২টি কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এগুলোকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবেই দেখছেন যশোরবাসী। প্রধানমন্ত্রীর আগমন এবং সঙ্গে আড়াই ডজন উপহারের খবরে যশোর যেন এখন উৎসবের নগরী। গত কয়েকদিন ধরেই ঐতিহ্যবাহী এই জেলা শহরটিতে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

রবিবার সকাল ১১টায় যশোর পৌঁছাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে বিমান বাহিনীর অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বিকালে তিনি উন্নয়নমূলক কাজগুলোর উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। পরে এক সমাবেশে যোগ দেবেন তিনি।

প্র্রধানমন্ত্রীর সফর উপলক্ষে যশোরে এখন সাজ সাজ রব প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে যশোরজুড়ে এখন সাজ সাজ রব। শহরের প্রবেশমুখ থেকে শুরু করে প্রধান সড়কগুলোয় নির্মিত হয়েছে অন্তত দেড় শতাধিক তোরণ। সদর আসনের (যশোর-৩) সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদের সৌজন্যে নির্মিত এসব তোরণে শোভা পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর ছবি, বিভিন্ন উপাধিতে সম্বোধন করা হয়েছে তাকে। শহরের আনাচে কানাচে ছেয়ে গেছে ব্যানার, ফেস্টুনে। শহরজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়েছে।
শহরজুড়ে রয়েছে এমন অসংখ্য ব্যানার ফেস্টুন প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি অনেক ব্যানার, ফেস্টুনে বিভিন্ন দাবি দাওয়া উঠে এসেছে। এর মধ্যে যশোর বিভাগ ও সিটি করপোরেশন স্থাপন, মাইকেল মধুসূদন দত্তের নামে সংস্কৃতি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ভবদহ সমস্যার স্থায়ী সমাধান, শহরে পাইপলাইনের মাধ্যমে গ্যাস সরবরাহ, বেনাপোলে বঙ্গবন্ধু স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ গঠন উল্লেখযোগ্য। দাবি আদায়ে ইতোমধ্যে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর স্মারকলিপিও দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীও খালি হাতে আসছেন না। এই সফরে যশোরবাসীর জন্য আড়াই ডজন উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন করবেন তিনি। এর মধ্যে রয়েছে ১৮টি উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন ও ১২টি উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন। এগুলো হচ্ছে–

কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্প (১ম পর্যায়); তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে ‘নির্বাচিত বেসরকারি কলেজসমূহের উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় সদর উপজেলার আমদাবাদ কলেজ, শার্শা উপজেলার পাকশিয়া কলেজ ও বাঘারপাড়া উপজেলার বাঘারপাড়া ডিগ্রি কলেজে নির্মিত দোতলা ভবনের ৩য় ও ৪র্থ তলার সম্প্রসারণ কাজ; মনিরামপুর উপজেলায় ৫০০ আসন বিশিষ্ট শহীদ মশিয়ুর রহমান অডিটোরিয়াম-কাম মাল্টি পারপাস হল নির্মাণ, যশোর পাবলিক লাইব্রেরির উন্নয়ন প্রকল্প; যশোর মেডিক্যাল কলেজের একাডেমিক ভবন নির্মাণ; হৈবতপুর, নরেন্দ্রপুর, মহাকাল ও পাতিবিলা ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভবন নির্মাণ, যশোর পুলিশ সুপার ভবন ও পুলিশ হাসপাতাল নির্মাণ, শেখ রাসেলের পূর্ণাবয়ব প্রতিকৃতি ভাস্কর্য নির্মাণ, শহরের ১৩ কিলোমিটার সড়ক ও ২২ কিলোমিটার ড্রেন নির্মাণ কাজ, ঝিকরগাছা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ এবং অভয়নগরের মালোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ কাজ।

এছাড়া, তিনি ভৈরব রিভার বেসিন এলাকার জলাবদ্ধতা দূরীকরণ ও টেকসই পানি ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন প্রকল্প, যশোর-বেনাপোল ও যশোর-খুলনা জাতীয় মহাসড়ক যশোর অংশ (পলাশবাড়ী হতে রাজঘাট অংশ) প্রশস্তকরণ প্রকল্প, কেশবপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণ, যশোর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ, শহরের ২৫ কিলোমিটার সড়ক ও ২৪ কিলোমিটার ড্রেন নির্মাণ কাজ, নগরীর হামিদপুর কম্পোস্ট প্ল্যান্ট, প্রি-ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট, বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট এবং কন্ট্রোল ল্যান্ডফিল সেল নির্মাণ, ঝিকরগছা উপজেলা পরিষদের সম্প্রসারিত প্রশাসনিক ভবন ও হলরুম নির্মাণ, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের ম্যুরাল স্থাপন এবং শেখ রাসেল জিমনেসিয়াম ভবন ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন।

রবিবার সকাল ১১টায় যশোরে পৌঁছে বিমান বাহিনী একাডেমিতে অনুষ্ঠেয় রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ-২০১৭ অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর বিকাল পৌনে ৩টায় তিনি ‍উন্নয়ন কাজগুলো উদ্বোধন করবেন।

বিকাল ৩টায় যশোর ঈদগাহ মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য দেবেন তিনি।