উন্নয়নের জন্য মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে : তালুকদার আ: খালেক

0
858

এম জে ফরাজী, খুলনাটাইমস:
খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাকে আরও তরান্বিত করতে খুলনার মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে। ২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে আমি কতটা কাজ করেছিলাম, আর পরের মেয়র কী করেছেন, সেটি এখন তুলনা করতে পারবে মানুষ। মঙ্গলবার এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে এ প্রতিবেদককে কথাগুলো বলেন তিনি।
এর প্রশ্নের জবাবে তালুকদার খালেক বলেন, পাঁচ বছর আগের পরিণতি হবে না বলে তিনি আশাবাদী। বলেন, আমি শতভাগ আশাবাদী। কারণ, খুলনার মানুষ এখন তুলনা করতে পারবে। আমি পাঁচ বছর মেয়র ছিলাম। আমার পরে আরেকজন মেয়র হয়েছিলেন। তিনি কতটুকু কাজ করছেন তা এখন মানুষ জানে। আমি মনে করি মানুষ উন্নয়নের পক্ষে। উন্নয়নের জন্য তাঁরা আমাকে ভোট দেবে।
নগর আ’লীগ সভাপতি বলেন, নেত্রী মনোনয়ন প্রত্যাশী ও মহানগর এবং জেলার নেতাদের সঙ্গে কথা বলেন। বৈঠকে উপস্থিত সকলেই আমাকে সমর্থন করেন। নেত্রী তখন বললেন, সবাই যখন একজনকে সমর্থন দিয়েছেন তখন মনোনয়ন বোর্ড তাকেই মনোনয়ন দেব।
পাঁচ বছর আগের নির্বাচনে দলের ভেতরে একাংশের বিরোধিতার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রার্থী যতই জনপ্রিয় থাকুন না কেন, কিন্তু দলীয় কোন্দল থাকলে, নেতাকর্মীরা ঠিকমতো কাজ না করলে প্রার্থীর বিজয় নাও হতে পারে। কিন্তু এবার সকলেই দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে। নেত্রীর সামনেই তাঁরা কথা দিয়েছে।
প্রসঙ্গত, খুলনা সিটি কর্পোরেশনে মেয়র পদে গত দুই বছরের ধারাবাহিকতায় এবারও মনোনয়ন পেয়েছেন তালুকদার আব্দুল খালেক। ২০০৮ সালে মহানগরে মেয়র নির্বাচিত হলেও ২০১৩ সালে তিনি হেরে যান বড় ব্যবধানে। তবে মেয়র থাকাকালে পাঁচ বছরে তিনি খুলনার চেহারাই অনেকটা পাল্টে দিয়েছিলেন। উন্নয়ন নিয়ে তেমন ক্ষোভ না থাকলেও অন্যান্য নানা সমীকরণ আর দলের একাংশের বিরোধিতায় হারতে হয় তাকে। ওই নির্বাচনে হারার পর ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাট-৩ (মংলা-রামপাল) আসনে সহজ জয় পান খালেক। সেই সদস্যপদ ছাড়িয়ে তাকে মেয়র পদে ভোট করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্ষমতাসীন দল। পাঁচ বছর আগে ৬০ হাজারের বেশি ভোটে হেরেছেন। এখন কোন ভরসায় সংসদ সদস্যপদ ছেড়ে খুলনায় আবার নির্বাচন করতে আসছেন-সেই একটি বড় প্রশ্ন।
২০০৮ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত খুলনার মেয়র হিসেবে মহানগরে দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছিলেন তিনি। তার বিরুদ্ধে বড় কোনো অভিযোগ না থাকলেও দলের একটি অংশের সঙ্গে তার দূরত্ব তৈরি হয়। আর ২০১৩ সালের নির্বাচনে দলের ওই অংশের নীরব বিরোধিতায় খালেক হেরে গিয়েছিলেন বলে প্রচার আছে। তবে এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। খুলনা আওয়ামী লীগ সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে খালেককে মনোনয়ন দেয়ার প্রস্তাব কেন্দ্রে পাঠায়। আর দলের মনোনয়ন বোর্ডে সাক্ষাৎকার দেয়া নেতাদের বেশিরভাগই মত দেন, খুলনায় জিততে হলে তালুকদার আব্দুল খালেককেই দরকার।