উত্তপ্ত খুলনার পাটকলের শ্রমিক সেক্টর : পাওনার দাবিতে বিক্ষোভ অব্যাহত

0
573

এম জে ফরাজী :
বকেয়া মজুরী বেতন পরিশোধের দাবিতে খুলনা-যশোর অঞ্চলের ৮ রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকেরা রাজপথে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ কর্মসূচি পালন অব্যাহত রেখেছে। এ সেক্টরে শ্রমিক অসন্তোষ দানা বেধে উঠেছ। উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পাটকল সেক্টর। যে কোন মুহূর্তে অনাকাংখিত ঘটনার আশঙ্কা করছেন অনেকে।
রবিবার ভোর থেকে তৃতীয় দিনের মতো মিলের উৎপাদন বন্ধ রেখে তারা কর্মবিরতি পালন করছে। এদিন ১১ দফা দাবিতে রাজপথ বিক্ষোভ মিছিল করেছে শ্রমিকরা। সকাল সাড়ে ১০টায় মিছিলটি বিআইডিসি সড়ক হয়ে নতুন রাস্তা ঘুরে ফের স্ব স্ব মিল গেটে শেষ হয়। দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে খেটে খাওয়া শ্রমিকের ন্যায্য পাওনা আদায়ের জন্য রাজপথ-রেলপথ অবরোধসহ কঠের কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানান আন্দোলনরত শ্রমিকেরা।
এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত স্টার, প্লাটিনাম, দৌলতপুর, ক্রিসেন্ট, ইস্টার্ণ, জেজে আই ও আলীম মোট ৭টি জুট মিলের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় শ্রমিকেরা। এদিন চলছে কার্পটিং এবং খালিশপুর জুট মিল। শনিবার থেকে কার্পেটিং জুট মিলের শ্রমিকেরা কাজে যোগদান করলেও খালিশপুর জুট মিলের কোন শ্রমিক উৎপাদন কাজে যোগ দেয়নি।
শ্রমিকেরা জানায়, বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৯টায় ৮ সপ্তাহের মজুরির দাবিতে প্লাটিনাম জুট মিলের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় শ্রমিকেরা। পরবর্তীতে সকাল ১০টায় একে একে ক্রিসেন্ট, দৌলতপুর ও স্টার জুট মিলের শ্রমিকরা তাদের মিলের উৎপাদন বন্ধ রেখে বিক্ষোভ শুরু করে। এ চারটি মিল বন্ধের সংবাদ পেয়ে দুপুর ২টার দিকে আটরা-গিলাতলা শিল্পাঞ্চলের ইস্টার্ণ এবং যশোর অভয়নগরের জেজে আই জুট মিলের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় শ্রমিকরা। ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আলীম জুট মিলের শ্রমিকরা উৎপাদন বন্ধ করে দেয়। আর শনিবার খালিশপুর জুট মিলের শ্রমিকেরা উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছে।
পাটকলগুলোর সূত্র জানায়, খুলনা অঞ্চলের ৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের মধ্যে ক্রিসেন্ট জুট মিলে প্রায় ৫ হাজার, প্লাটিনাম সাড়ে ৪ হাজার, স্টার সাড়ে ৪ হাজার, দৌলতপুর জুট মিল সাড়ে ৬শ’, ইস্টার্ন ২ হাজার, আলীম দেড় হাজার এবং জেজেআই জুট মিল ২ হাজার ৬শ’ এবং খালিশপুর জুট মিল প্রায় সাড়ে চার হাজার শ্রমিক রয়েছেন। এসব পাটকলের শ্রমিকদের চার থেকে ১২ সপ্তাহের মজুরি বকেয়া রয়েছে।
ক্রিসেন্ট জুট মিলের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহরাব হোসেন বলেন, মজুরি না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে শ্রমিকরা। তাই তারা বাধ্য হয়ে মিলর উৎপাদন বন্ধ করে দিয়ছন। এখনও পর্যন্ত শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। বকেয়া পরিশোধের বিষয় সুষ্ঠু সমাধান না হওয়া পর্যন্ত শ্রমিকরা কাজে যোগদান করবে না।
বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন (বিজেএমসি) খুলনা অঞ্চলের লিয়াজো কর্মকর্তা গাজী শাহাদাত হোসেন বলেন, খামাকা শ্রমিকরা মিল বন্ধ করে একাকার করে ফেলেছ। অন্য অঞ্চলের সব মিল চালু কোন সমস্যা নই। এখানে কেউ কেউ ফায়দা নেওয়ার জন্য এ আন্দোলন করছেন। তিনি জানান, বেতনের বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। দুই দিন অফিস বন্ধ ছিলো। ঊর্ধতনদের বিষয়টি জানানা হয়েছে।