ঈদের পূর্বে ৩ দিন থাকছে খুলনা স্পেশাল ট্রেন, বাড়ছে আসন

0
880

নিজস্ব প্রতিবেদক:

অবশেষে খুলনা-ঢাকা রুটে তিন দিনের জন্য স্পেশাল ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ১২, ১৩ ও ১৪ জুন এই ট্রেন চলবে। এছাড়া খুলনা-ঢাকা রুটে চলাচলকারী চিত্রা ও সুন্দরবন এক্সপ্রেসে ৪টি করে অতিরিক্ত বগি যোগ করা হবে। এতে প্রায় ৩৫০ জন যাত্রী অতিরিক্ত যাত্রী আসা-যাওয়া করতে পারবেন। আগামী ১১ জুন থেকে ২২ জুন পর্যন্ত ১২ দিন এই অতিরিক্ত বগি থাকবে। ফলে এবার ঈদে যাত্রী সেবায় বাড়ছে আসন সংখ্যা।
এদিকে খুলনা স্টেশনে পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে আজ। শনিবার সকাল থেকে শুরু হয়ে টিকিট বিক্রি চলবে ১৩ জুন পর্যন্ত। আজ ২ জুন বিক্রি হবে আগামী ১১ জুনের, কাল ৩ জুন বিক্রি হবে ১২ জুনের, ৪ জুন বিক্রি হবে ১৩ জুনের, ৫ জুন বিক্রি হবে ১৪ জুনের ৬ জুন বিক্রি হবে ১৫ জুনের টিকিট বিক্রি হবে। দু’দিন বিরতির পর (ঈদ পরবর্তী) ৯ জুন বিক্রি হবে ১৮ জুনের, ১০ জুন বিক্রি হবে ১৯ জুনের, ১১ জুন বিক্রি হবে ২০ জুনের, ১২ জুন বিক্রি হবে ২১ জুনের ও ১৩ জুন বিক্রি হবে ২২ জুনের টিকিট। স্টেশন কাউন্টারে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি হবে। একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারবেন।
ঈদ উপলক্ষে সাত জোড়া স্পেশাল ট্রেন রাখা হলেও খুলনায় কোনো স্পেশাল ট্রেন না রেখেই রেলওয়ের পরিকল্পনা ঘোষণা করা হয়। বিষয়টি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন খুলনার নাগরিক নেতারা। ট্রেনের দাবিতে রেলমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপিও প্রেরণ করে বিভিন্ন সংগঠন। বিবৃতি দিয়ে নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ এবং স্পেশাল ট্রেনের দাবি জানান তারা। এরপর গতকাল শুক্রবার স্পেশাল ট্রেন বরাদ্দের ঘোষণা আসলো। তবে ঈদের পরে স্পেশাল ট্রেন থাকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন খুলনার ঘরমুখো যাত্রীরা। তারা জানান, ঈদের ছুটি শেষে ফিরতি ট্রেনে যাত্রীর চাপ সবচেয়ে বেশি থাকে। কিন্তু তখন কোনো স্পেশাল ট্রেন রাখা হয়নি। ঈদের পরেও অতিরিক্ত ট্রেন দিলে মানুষ বেশি উপকৃত হতো।
খুলনার স্টেশন মাস্টার মানিক চন্দ্র সরকার জানান, ১২ জুন থেকে খুলনা স্পেশাল ট্রেন চলাচল শুরু হবে। চলবে ১৪ জুন পর্যন্ত। মৈত্রী এক্সপ্রেসের ১০টি বগি এই স্পেশাল ট্রেনে দেওয়া হচ্ছে। এই ট্রেনের সবগুলো আসন এসি।
খুলনা রেলওয়ের এরিয়া অপারেটিং ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ জানান, খুলনা স্পেশাল ট্রেনে ১০টি বগির মধ্যে ৮টি যাত্রীবাহী বগি এবং ২টি পাওয়ার কার থাকবে। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসার সময় ট্রেনে ৪০৮টি এবং খুলনা থেকে যাওয়ার সময় ৫০৪টি আসন থাকবে। ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাত ১২টা ৫ মিনিটে ছেড়ে খুলনায় আসবে সকাল ৮টা ২০ মিনিটে। আর খুলনা থেকে দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে ঢাকা পৌঁছাবে রাত ১১টা ১০ মিনিটে। আগামী ৩ জুন থেকে স্পেশাল ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে। এছাড়া ঈদ উপলক্ষে চিত্রা ও সুন্দরবন এক্সপ্রেসের সাথে ৪টি করে মোট ৮টি বগি যুক্ত হবে। ঈদের আগে ১১ জুন থেকে চিত্রা ও অতিরিক্ত বগিযুক্ত হবে। এ সময়ে সুন্দরবন ও চিত্রা এক্সপ্রেসে ১৬টি বগি চলাচল করবে। ঢাকাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেসে ৩৩৯টি এবং চিত্রা এক্সপ্রেসে ৩৬৩টি অতিরিক্ত ৪টি বগিতে আসন যুক্ত হবে। তবে ঢাকা থেকে খুলনা ফেরার সময়ে সুন্দরবন এক্সপ্রেসে ৩৬৩টি এবং চিত্রায় ৩৩৯টি অতিরিক্ত আসন থাকবে।