আশাশুনিতে সংখ্যালঘুকে ঘরবন্দি করে মারপিটের অভিযোগ

0
326

আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি, খুলনাটাইমস:
আশাশুনিতে সংখ্যালঘুকে ঘরবন্দি করে মারপিট ও মারপিট শেষে অলিখিত ষ্ট্যাম্পে জোর পূর্বক স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যাপারে আশাশুনি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।
জানাগেছে, উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের নওয়াপাড়া গ্রামের মৃত দিনবন্ধু সরকারের পুত্র দিপক কুমার সরকারকে শনিবার সন্ধ্যায় নওয়াপাড়া গ্রামস্থ এম আর এস ব্রিকস এর অফিস কক্ষে বন্দি করে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে। খবর পেয়ে তার ভাই দিপংকর সরকার লোকজন নিয়ে  আহত দিপক সরকারকে ইট ভাটা থেকে উদ্ধার করে আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
লিখিত অভিযোগ প্রকাশ ২০১৭ সালের ১০ডিসেম্বর তারিখে সাতক্ষীরা বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ৯৮ ধারায় দীপক কুমার সরকার এম আর এস ব্রিকস স্বত্ত¡াধিকারী মোঃ রেজাউল ইসলামের সহ ৪জনের নামে স্বাক্ষরিত একটি চেক ও ষ্ট্যাম্প ফিরে পেতে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১২৯৪/১৭।
আসামীগণ বসাবসির মাধ্যমে চেক ও ষ্ট্যাম্প ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলে মামলা প্রত্যাহারের জন্য অনুরোধ জানায়। তাদের ছলোনাময়ি অনুরোধে দিপক কুমার সরকার চলতি বছরের ২২জানুয়ারী উক্ত (১২৯৪/১৭) মামলাটি প্রত্যাহার করে নেন। এম আর এস ব্রিকস স্বত্ত¡াধিকারী মোঃ রেজাউল ইসলামের প্রতিশ্রæতি অনুযায়ী চলতি মাসের ৩ফেব্রæয়ারী সন্ধ্যায় দিপক কুমার সরকারকে চেক ও ষ্ট্যাম ফিরিয়ে দিতে ভাটা মালিক রেজাউল ইসলাম সহ নওয়াপাড়া গ্রামের মৃত জনাব আলী গাজীর পুত্র মোজাম্মেল গাজী ও রেজাউল গাজী ভাটায় ডেকে দিপক সরকারকে মারপিট করে আবারও একটি ২৫০টাকার অলিখিত ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নেয়।
তাকে উদ্ধারের জন্য তার ভাই দিপংকর সরকার ইট ভাটায় গেলে ভাটা কর্তৃপক্ষের নামে মামলা করলে দিপক ও দিপংকরের জীবন নাশের হুমকি দেয় রেজাউল ইসলাম। এমতাবস্থায় সংখ্যাগরিষ্ট ভাটা মালিকের হাত থেকে রক্ষা পেতে সংখ্যালঘু দিপক ও দিপংকর সরকার প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তার আশুহস্তক্ষেপ কামনা করছেন।#