আশাশুনিতে ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলন কোন ভাবেই থামছে না

0
611

আশাশুনি প্রতিনিধি:
আশাশুনি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলন যেন কোন ভাবেই থামছে না। কেউ জানে না এদের খুঁটির জোর কোথায়? প্রশাসনের কড়া নিষেধাজ্ঞা থাকার সত্ত্বেও বাংলাদেশ সরকারের বালুমহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন, ২০১০ এর ৬২ নং ধারাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চলছে ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলনের মহা উৎসব। সরেজমিন ঘুরে দেখাগেছে, আশাশুনির শোভনালী ইউনিয়নের কোনার বাঁকড়া এলাকায় প্রশাসনের নাম ভাঙ্গীয়ে দিনে দুপুরে মৎস্য ঘেরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে ভূ-গর্ভ থেকে নির্ধিদায় বালু উত্তোলন করছেন এবং সেই বালু চড়া দামে বিক্রিও করছেন বাঁকড়া গ্রামের অমেদ আলী গাজীর পুত্র নূর মোহাম্মদ সহ তার সহযোগীরা। বালু উত্তোলনের সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা প্রশাসনের এক কর্মকর্তার নাম ভাঙ্গিয়ে অনুমতি আছে বলে জানান। তিনি আরও বলেন, আপনারা পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করলেও আমাদের কোন যায় আসে না। প্রশাসন আমাদের পকেটে থাকে। এছাড়া পাইথালী বাজারের উত্তর পাশের কামারবাড়ী মোড় টু ব্যাংদহা নতুন পিচের কার্পেটিং হওয়া সড়কের জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের চুক্তিতে শ্রীউলা ইউনিয়নের কলিমাখালি গ্রামের মৃত নূর আলী মোড়লের পুত্র শাহাজান আলী তার নিজস্ব ড্রেজার মেশিন দিয়ে বে-আইনি ভাবে উক্ত সড়কের পাশে গনেশ গাইনের বাড়ীর পাশের পুকুর থেকে অবৈধ ভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে নির্দিধায় বালু উত্তোলন করছেন। এর ফলে হালকা থেকে মাঝারী ধরণের ভূমিকম্পন হলেই যেন কোন সময় ধ্বসে পড়তে পারে এসকল এলাকার পাকা স্থাপনা। এছাড়া বুধহাটা ইউনিয়নের বেউলা গাজীর হাট থেকে পশ্চিমে বাঁকড়া সড়কের শেষের অংশে নতুন ইট ভাটা নির্মাণ ও জায়গা ভরাটের জন্য মৎস্য ঘের থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধ ভাবে ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলন করছেন শাহাজান আলী। এছাড়া শোভনালী/নৈকাটি ব্রীজের এপ্রোজ সড়ক নির্মাণের জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ব্রীজের ৫০/১০০ফুট দূরে কয়েকটি ড্রেজার মেশিনে ভলগেট লাগিয়ে ভূ-গর্ভ থেকে নির্ধিদায় বালু উত্তোলন করছেন। স্থানীয় সচেতন মহল বালু উত্তোলনে বাঁধা দিলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মামলা হামলার ভয় দেখিয়ে তাদেরকে শান্ত করে বলে অভিযোগ সচেতন মহলের। প্রকাশ্যে বালু উত্তোলনের মাধ্যমে এলাকার মানুষের জানমাল ও জায়গা জমির ক্ষতি সাধিত হলেও তাদেরকে বালু উত্তোলন করা থেকে কোন রকম থামানো যাচ্ছেনা। আশাশুনি উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের প্রায় সকল এলাকায় ব্যক্তি পর্যায়ে পুকুর ভরাট, বসতবাড়ী ভরাট করে উঁচু করণ, এলজিইডি সড়ক নির্মাণ ও রাস্তার পাশের নিচু জায়গা ভরাট করতে একই ভাবে ভূ-গর্ভের বালু উত্তোলন করা হচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। এসকল কাজে পুকুর খাল-বিল অথবা মৎস্য ঘের কিংবা সমতল ভূমি থেকে ড্রেজার মেশিনে ভলগেট লাগিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। বালু উত্তোলনের বিষয়ে জানতে চাইলে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল বলেন, ভূ-গর্ভ থেকে বালু উত্তোলন করা বে-আইনি এবং শাস্তি যোগ্য অপরাধ। নির্ধারিত ঘোষিত বালু মহলের স্থান ছাড়া যদি কেউ খাল-বিল, নদী, পুকুর বা সমতল স্থান থেকে ড্রেজার মেশিনে ভলগেট লাগিয়ে বালু উত্তোলন করে তবে তার বা তাদের বিরুদ্ধে অতিদ্রুত মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বালু উত্তোলনের সাথে যদি কোন সরকারী কর্মকর্তার জোগসাজোস থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।