আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে খিৃষ্টীয় গির্জার জমি দখলের অভিযোগ

0
525

মংলা প্রতিনিধিঃ মংলার দক্ষিনকাইনমারীতে খৃষ্ট্রান সম্প্রদায়ের গির্জার জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতির সুন্দর নাথের বিরুদ্ধে। অপর এক অসহায় গরীব কৃষকের বসত ভিটাও ইতিমধ্যে দখল করে নিয়েছেন প্রভাশালী ওই নেতা। এ ছাড়া নিরীহ গ্রামবাসীর জমি-মৎস্য ঘের সহ ভিটামাটি দখলের একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ সব ঘটনায় স্থানীয় সংসদ ও ইউপি চেয়ারম্যান সহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেও গ্রামবাসীর প্রতিকার মিলছে না।
কাইনমারী ফেলোশিপ চার্জ (গির্জার) পুরোহিত উত্তম মন্ডল জানান,দীর্ঘ প্রায় ৮ যুগের বেশি সময় ধরে চিলা ও দক্ষিন কাইনমারী সহ আশপাশ এলাকার খৃষ্টান সম্প্রদায়ের মানুষ এ গির্জায় ধর্মীয় সভা-সামবেশ উপাসনালয় করে আসছে। স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি সুন্দরনার্থ প্রায়ই সময় গির্জার গাছ পালা ও গাছের ফল ফরাদি জোর পূর্বক নিয়ে যায়। গত ২ অক্টোবর একদল উশৃংখল ও লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে আকস্মিক ভাবে গির্জার সামনে জায়গা টুকু ঘেরা দিয়ে দখল নেয় সুন্দরনার্থ। একই দিনে কাইনমারী এলাকার বাসিন্দা সিমসম মিস্ত্রীর বাড়ীর সম্পত্তি জোর পূর্বক দখল নেয়ার চেষ্টা চালায় সে। এসময় সুন্দরনার্থ ও তার বাহিনীর ধারালো অস্ত্র,রড় ও কুড়ালের আঘাতে গুরুতর আহত হন সিমসম মিস্ত্রি,স্ত্রী সম্পা মিস্ত্রী ও ভাই ম্যাকফিল মিস্ত্রি। সিমসম মিস্ত্রী আসংঙ্কা জনক অবস্থায় এখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। এ ঘটনার পর দিন সুন্দরনার্থ সহ কয়েক জন কে আসামী করে মংলা থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। আর গির্জার জমিদখল মুক্ত করতে স্থানীয় সাংসদ হাবিবুন নাহার ও ইউপি চেয়ারম্যান মোল্যা তরিকুল ইসলামের কাছে লিখিত অভিযোগ করে গির্জা পরিচালনা কমিটি। এ অবস্থায় সুন্দরনার্থ ধর্মযাযক সহ গির্জা পরিচালনা কমিটি সহ নিরীহ এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে আদালতে পাল্টা মামলা দায়ের করে। আত্মগোপনে থাকা সুন্দরনার্থ তার সহযোগীরা নানাভাবে গির্জা পরিচালনা কমিটির সদস্যদের হুমকি-ধামকী দিয়ে চলছে। অভিযোগ রয়েছে-ভুমিদস্যু খ্যাত সুন্দরনার্থ জোর পুর্বক ভুমি দখলসহ কাইনমারী এলাকার অসহায় মানুষের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১৫-২০টি মিথ্যা মামলা দায়ের করে করেছে। এ বিষয়ে মংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোল্ল্যা তারিকুল ইসলাম জানান,গির্জার সম্পত্তি নিয়ে গির্জা পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ পেয়েছিলাম। পরে দু’পক্ষকে ডেকে বিরোধ মিমাংসা করে দিয়েছি কিন্তু পরবর্তীতে ওই মিমাংসা উপেক্ষা করে সুন্দরনার্থ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। গির্জার সম্পত্তি দখল নেয়ার ব্যাপরে সুন্দরনার্থ জানান,আমাদের পূর্ব পুরুষরা গির্জা ও স্কুলের জন্য একুশ শতক করে ৪২শতক সম্পত্তি দান করে। কিন্তু বর্তমান গির্জা অবৈধ ভাবে স্কুলটি ভেঙ্গে দিয়ে গির্জা কমিটির কতিপয় ব্যাক্তির নামে ওই সম্পত্তি নেয়ার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। আর সিমসম মিস্ত্রির জমি দখলের ঘটনা নিয়ে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে বলে দাবি করেন সুন্দরনার্থ। মংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, গির্জার সম্পত্তি দখলের বিষয়ে কোন অভিযোগ থানায় আসেনি তবে গরীব এক কৃষকের ভুমি দখল সহ তাকে মারধর করার অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে। এ মামলায় সুন্দরনার্থকে আটকের চেস্টা চলছে ।