‘আলতাফ মাহমুদ ছিলেন আদর্শবান সাংবাদিক নেতা’

0
492

টাইমস প্রতিবেদক : প্রয়াত সাংবাদিক আলতাফ মাহমুদ ছিলেন পেশাগত অধিকার আদায়ে এক সৎ ও আদর্শবান নেতা। তিনি সব সময় অন্যায়ের বিরুদ্ধে, সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে সোচ্চার ছিলেন।

বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)-এর যৌথ উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত আলোচনা ও স্মরণসভায় সাংবাদিক নেতারা এসব কথা বলেন।

সাংবাদিক নেতা আলতাফ মাহমুদের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএফইউজের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল।

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

অন্যান্যের মধ্যে স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, বিএফইউজের মহাসচিব ওমর ফারুক, জাতীয় প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভূইয়া ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বিএফইউজের সাবেক মহাসচিব আবদুল জলিল ভূইয়া, ডিইউজের সভাপতি শাবান মাহমুদ ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শুকুর আলী (শুভ), আলতাফ মাহমুদের বড় মেয়ে আইরিন মাহমুদ ও ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী সাংবাদিকদের ঐক্য আরও দৃঢ় করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আলতাফ মাহমুদ সৎ ও ন্যায়ের পক্ষে ছিলেন আপসহীন এক নীতি ও আদর্শবান নেতা।তার নীতি ও আদর্শকে লালন করে সাংবাদিকদের সামনের দিকে এগিয়ে যাবার জন্য তিনি আহ্বান জানান।

ডা. কামরুল হাসান খান বলেন, আলতাফ মাহমুদ সব সময় সাংবাদিকদের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। তিনি ছিলেন সাংগঠন প্রিয় এক শ্রদ্ধাভাজন নেতা।

মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, শিগগিরই আলতাফ মাহমুদের জীবন ও কর্ম নিয়ে পিআইবি একটি স্মারকগ্রন্থ বের করবে। ওই গ্রন্থ সাংবাদিকদের আদর্শবান নেতা হওয়ার প্রেরণা যোগাবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আলতাফ মাহমুদ ২০১৬ সালের ২৪ জানুয়ারি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। তিনি বিএফইউজের সভাপতি ও মহাসচিব এবং ডিইউজের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

জীবদ্দশায় আলতাফ মাহমুদ দৈনিক খবর, দৈনিক অর্থনীতির কাগজ ও দৈনিক ডেসটিনি পত্রিকার গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি ফিল্ম সেন্সর বোর্ড, ঢাকা ওয়াসা পরিচালনা পর্যদসহ সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদেও দায়িত্ব পালন করে গেছেন।