আমাদরে স্বাধীনতা যনেো কউে নস্যাৎ করতে না পার: প্রধানমন্ত্রী

0
321

অনলাইন ডস্কে : প্রধানমন্ত্রী শখে হাসনিা বলছেনে, বাংলাদশে এগয়িে যাচ্ছ,ে এগয়িে যাব।ে দরদ্রি বলে কউে অবহলো করতে পারে না। রক্তরে বনিমিয়ে র্অজতি আমাদরে স্বাধীনতা কউে যনে নস্যাৎ করতে না পারে সজেন্য দশেবাসীকে সজাগ থাকতে হব।ে

মঙ্গলবার বলো ১১টায় গণগ্রন্থাগাররে শওকত ওসমান স্মৃতি মলিনায়তনে একুশে পদকপ্রাপ্তদরে পুরস্কার বতিরণ অনুষ্ঠানে তনিি এসব কথা বলনে।

প্রধানমন্ত্রী বলনে, বাংলাদশেকে আরো উন্নত সমৃদ্ধ করে যনে গড়ে তুলতে পারি সজেন্য দশেবাসীর সহায়তা চাই। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা আমরা গড়ে তুলতে এ জন্য সকলরে সহযোগীতা চাই। বাঙালি জাতি রক্ত দয়িে স্বাধীনতা র্অজন করছে।ে

এবারে একুশে পদকপ্রাপ্তরা হলনে-
ভাষা আন্দোলনে মরহুম আ. জা. মা. তকীউল্লাহ (মরণোত্তর) ও অধ্যাপক মর্জিা মাজহারুল ইসলাম। শল্পিকলার সংগীত বভিাগে একুশে পদক পয়েছেনে পাঁচজন। তারা হলনে- শখে সাদি খান, সুজয়ে শ্যাম, ইন্দ্র মোহন রাজবংশী, খুরশীদ আলম ও মতউিল হক খান। নৃত্যশল্পিী মনিু হক একুশে পদক পয়েছেনে শল্পিকলার নৃত্যে বশিষে অবদানরে জন্য।

অভনিতো হুমায়ূন ফরীদি মরণোত্তর একুশে পদক পয়েছেনে শল্পিকলার অভনিয় বভিাগ।ে নখিলি সনে (নখিলি কুমার সনেগুপ্ত) শল্পিকলার নাটকরে জন্য, কালদিাস র্কমকার শল্পিকলার চারুকলায় ও গোলাম মুস্তাফা শল্পিকলার আলোকচত্রিে পয়েছেনে একুশে পদক।

সাংবাদকিতায় ২০১৮ সালরে একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদকি হলনে রণশে মত্রৈ। গবষেণায় মরণোত্তর পদক পয়েছেনে ভাষাসনৈকি প্রফসের জুলখো হক। র্অথনীততিে ড. মইনুল ইসলাম ও সমাজসবোয় অভনিতো ইলয়িাস কাঞ্চন পয়েছেনে একুশে পদক।

ভাষা সাহত্যিে পাঁচজন পয়েছেনে একুশে পদক। তারা হলনে- সয়ৈদ মনজুরুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম খান (কবি হায়াৎ সাইফ), সুব্রত বড়ুয়া, রবউিল হুসাইন ও মরহুম খালকেদাদ চৌধুরী।

দ্বতিীয় র্সবোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার হচ্ছে একুশে পদক। মন্ত্রপিরষিদ বভিাগ গত বছররে ৮ আগস্ট সংশোধতি ‘জাতীয় পুরস্কার/পদক সংক্রান্ত নর্দিশোবলী’তে স্বাধীনতা পুরস্কার, একুশে পদক, বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার, বগেম রোকয়ো পদক, জাতীয় চলচ্চত্রি পুরস্কার ও জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কাররে র্অথ বৃদ্ধি কর।ে

আগে ১৮ ক্যারটে মানরে পঞ্চাশ গ্রাম র্স্বণরে পদক, পদকরে একটি রপ্লেকিা ও একটি সম্মাননাপত্ররে সঙ্গে এক লাখ টাকা দয়ো হত। র্অথ বাড়য়িে দুই লাখ টাকা করা হয়।